জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা
৫৫দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
৪৩মিনিট
:
৩৭সেকেন্ড

সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
লকডাউনে সুস্থ থাকার দুর্দান্ত ৬ উপায় করোনা চিকিৎসায় ৫ হাজার শয্যার হাসপাতাল বানাবে বসুন্ধরা ভারতে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের ফেরাতে তালিকা লক ডাউন বাংলাদেশে অসহায় বঞ্চিত হিজরা জনগোষ্ঠীর সাহায্যের আবেদন আমতলীতে করোনায় কর্মহীন মানুষের মধ্যে উপজেলা প্রশাসনের খাদ্য সহায়তা প্রদান উল্লাপাড়ায় ওয়ার্ড মেম্বর বাবলু রায়ের বিরুদ্ধে নানা বিষয়ে অভিযোগ,তার হাত থেকে জনসাধারণ বাঁচতে চাই বদলগাছীতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বৃত্ত অঙ্কন করে কলেজ ছাত্রলীগের অভিনব প্রচার-প্রচারণা পটুয়াখালীতে সর্দি জ্বর ও এজমায় মৃত্যু দুই ব্যক্তির বাড়ি লক ডাউন করোনা ভাইরাসেরর সতর্কতায়:পটুয়াখালীতে তিন শতাধিক দরিদ্র পরিবারে চাল,ডাল,আলু বিতরন প্রতিদিনের ন্যায় আজও সারাদিন বেনাপোলে ম্যাজিস্ট্রেট এর অভিযান

মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাপর দলিল

মোট ছয়টি অধ্যায়ে বিভক্ত দেশের বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ-শিক্ষাবিদ রেহমান সোবহানের বাংলাদেশের অভ্যুদয়: একজন প্রত্যক্ষদর্শীর ভাষ্য বইটি মুক্তিযুদ্ধের দলিলস্বরূপ। এই বই না পড়লে মুক্তিযুদ্ধের একটি অধ্যায় আমাদের কাছে অজানাই থেকে যাবে। বইটি প্রসঙ্গে যথার্থই বলেছেন প্রকাশক মতিউর রহমান, ‘এ বইয়ের লেখক অধ্যাপক রেহমান সোবহান আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধ এবং তার আগে-পরের ঘটনাপ্রবাহের একজন সাক্ষী হিসেবে সে সময়টিকে খুব কাছ থেকে অনুসরণ করেছেন। ইতিহাসের সেই পর্ব নির্মাণের সঙ্গেও তিনি সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন। সেই অবস্থান থেকে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক পটভূমি এবং যুদ্ধকালীন ঘটনাপ্রবাহের বস্তুনিষ্ঠ বিবরণ বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য এই লেখাগুলোতে তুলে ধরেছেন।’ মতিউর রহমানের দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা এ বইয়ের আলোচনা করতে বসলে দেখব, রেহমান সোবহানের প্রথমা প্রকাশন প্রকাশিত বর্ধিত সংস্করণের এ বই সত্যিই বিরল গোত্রভুক্ত।

এ বইয়ের প্রথম অধ্যায়ের শিরোনাম ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদের অর্থনৈতিক ভিত্তি’। লেখক তাঁর ভূমিকায় বলেছেন, লেখাটিকে তিনি শুধু পরিমার্জিতই করেননি, সংযোগ-বিয়োজনের মাধ্যমে বর্তমান রূপ দিয়েছেন। একে নানাভাবে সমৃদ্ধ করেছেন। বস্তুত যে বাঙালি জাতির স্বায়ত্তশাসন বা তার পরের ধাপ স্বাধীনতার বীজ, ভিত্তি বা শিকড় প্রোথিত ছিল রাজনৈতিক অর্থনীতির গভীরে, লেখক রেহমান সোহবান তার চুলচেরা বিশ্লেষণ করেছেন এই দীর্ঘ প্রবন্ধ মারফত। এমনকি দুই পাকিস্তানের মধ্যে অর্থনৈতিক বৈষম্যের ছবি তুলে ধরতে গিয়ে যেসব সারণি ব্যবহার করেছেন তিনি, পরিসংখ্যান মারফত যেসব তথ্য তুলে ধরেছেন, তার পাঠ থেকে সহজেই অনুমান করা যায় যে দুই পাকিস্তানের এক নাড়ির বন্ধনে আবদ্ধ থাকার কোনো সুযোগই ছিল না। এই নিবন্ধের উপ-অধ্যায়গুলোর শিরোনাম থেকেই তার কিছুটা আঁচ করা যাবে। যেমন ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদের সংজ্ঞা নিরূপণ’, ‘অর্থনৈতিক বঞ্চনা’, ‘কতিপয় ধারণাগত প্রশ্ন’, ‘আঞ্চলিক হিসাবে পৃথক্‌করণ’, ‘অর্থনৈতিক বৈষম্যের হিসাবনিকাশ’, ‘কাঠামোগত পরিবর্তনে ভিন্নতা’, ‘জীবন মানের বৈষম্য’, ‘অঞ্চলগুলোর উত্তরাধিকার’, ‘উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত ব্যবসায়ী শ্রেণি’, ‘বাজার শক্তিগুলোর ভূমিকা’ ইত্যাদি। দীর্ঘ প্রথম অধ্যায়ে দুই পাকিস্তানের মধ্যকার চরম অর্থনৈতিক বৈষম্যের চালচিত্র তুলে ধরার পর রেহমান সোবহান ইতিমধ্যে জেগে ওঠা বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রসঙ্গ টেনে এই মর্মে উপহার টানছেন যে ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদের নতুন বাস্তবতার মুখোমুখি হওয়ার পর পাকিস্তান রাষ্ট্র বুঝতে পারে যে এই নেতৃত্বকে কিনে ফেলা যাবে না।’ সত্যিই সেটা তারা কোনোভাবেই পারেনি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com