বুধবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:২১ অপরাহ্ন

স্বপ্ন পূরনের জন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চায় রিপন সাহা

খবরের আলো :

 

 

হাবিবুর রহমান মাসুদ, পটুয়াখালী প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীর ছোটবাইশদিয়া বিজনেস ম্যানেজমেন্ট (বিএম) কলেজের দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র রিপন সাহা। বয়সের বেড়ে উঠার সঙ্গে মুখমন্ডলের বামপাশে অদ্ভুদভাবে বেড়ে উঠছে একটি মাংসপিন্ড। দিনেদিনে মাংসপিন্ডটি বড় হতে হতে বাম চোখটি এখন পুরোপুরি ডেকে গেছে। সুন্দর মুখমন্ডলটি ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। তার পরিবার জানায়, ছোটবেলায় অজানা রোগে আক্রান্ত হয়ে রিপনের এই অবস্থা। তবে নিজের স্বপ্ন পূরনে এই রোগ থেকে মুক্তি চায় সে।
জেলার রাঙ্গাবালীর ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের কোড়ালিয়া গ্রামের ক্সুদ্র ব্যবসায়ী জয়দেব সাহা ও গৃহিনি শেফালী সাহার বড় ছেলে। রাস্তার পাশে বসে বাদাম, জিলাপি, খুরমা ইত্যাদি বিক্রি করে কোনমতে সংসার চালায়। পাঁচ সদস্যের সংসারে রিপনের বাবা জয়দেব একাই উপার্জন করেন। অভাব অনটনের মধ্যে রিপনের পড়ালেখার খরচা জোগান দিতে হয়। কিন্তু রিপনের চিকিৎসার খরচ বহন করা তার পক্ষে দুঃসাধ্য।
রিপনের মা শেফালি রানী বলেন, রিপনের বয়স যখন এক বছর, তখন একদিন প্রচুর জ্বর হয়। এরপর মুখের বামপাশে মাংস ফুলে ওঠে। দিনদিন মুখের বামপাশে বাড়তে থাকে মাংস। পরে ডাক্তার দেখানো হইলেও তার কোন পরিবর্তন হয়নি। এখন বামপাশের চোখটা পুরোপুরি ঢেকে গেছে। মুখ আর থুতনির পাশেও মাংস বেড়ে গেছে। তাই বামচোখে কিছুই দেখতে পায় না।
রিপন সাহা বলেন, চেহারা ভয়ঙ্কর হওয়ায় সহপাঠিরা আমার সঙ্গে মিশে না। এড়িয়ে চলে। আমিও চাই, ওদের মত সুন্দর জীবন যাপন করতে। পড়ালেখা করে ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন আমার।
ছোটবাইশদিয়া বিএম কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, রিপন আমাদের কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র। অর্থাভাবে ওর ভাল চিকিৎসা করাতে পারছে না।
রিপনের বাবা জয়দেব সাহা বলেন, মাসখানেক পূর্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়েছি। তিন ধাপে অস্ত্রোপাচার করে চিকিৎসা করতে হবে। এতে প্রায় তিন লাখ টাকা খরচা হবে। এত টাকা আমার পক্ষে বহন করা অসাধ্য হয়ে পড়েছে। ছেলের চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের সাহায্য কামনা করছি।
সহযোগিতার জন্য যোগাযোগ করুন রিপনের বাবা জয়দেব সাহার মোবাইল নম্বরে ০১৭৮৫৪২০১৭৩ (ডাচ্-বাংলা)।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com