রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৬ অপরাহ্ন

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় প্রাণ গেল স্কুলছাত্রীর

মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারী :যুবকের প্রেমে রাজি না হওয়ায় সড়ক দুর্ঘটনার নাটক সাজিয়ে এক স্কুল ছাত্রীকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত মদিনাতুল কোবরা জেরিন সদর উপজেলার ধল গ্রামের আব্দুল হাইয়ের মেয়ে ও রিচি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরিক্ষার্থী ছিল।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদিক সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা জানান- হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী মাদিনাতুল কোবরা জেরিনের মৃত্যু প্রথমে সড়ক দুর্ঘটনার কারণে হয়েছে বলে মনে করা হলেও তিনি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাননি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়- একই গ্রামের দিদার হোসেনের ছেলে জাকির হোসেন প্রায়ই জেরিনকে প্রেম প্রস্তাব দিত। জাকির বারবার প্রেম নিবেদন করলে জেরিন তাতে সাড়া দেয়নি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জাকির তার বন্ধুদের সহযোগিতায় জেরিনকে অপহরণের সিদ্ধান্ত নেয়। সর্বশেষ গত রোববার সকালে স্কুলে যাওয়ার সময় জেরিনের বাড়ির সামনে একটি সিএনজি অটোরিকশা দাঁড় করিয়ে রাখে জাকির। এ সময় জেরিন স্কুলে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়েই সিএনজিতে উঠে যায়। পথিমধ্যে জাকির হোসেন ও তার সহযোগী হৃদয় একই সিএনজিতে উঠে জেরিনকে আবারও প্রেম নিবেদন করে। এ সময় জেরিন রাজি না হওয়ায় জাকির হোসেন তাকে অপরহরণ করার চেষ্টা করে।

তখন তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে জেরিন সিএনজি থেকে পরে যায়। এতে সে গুরুতর আহত হয়।

স্থানীয় লোকজন জেরিনকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন মারা যায় জেরিন।

জেরিনের মৃত্যুর সংবাদ তার সহপাঠীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তারা সড়ক অবরোধ ও অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষোভ করে। জেরিনের সহপাঠিদের বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামে পুলিশ।

এ ঘটনায় জাকির হোসেনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে প্রাথমিকভাবে পুলিশের কাছে ঘটনার স্বীকার করে তিনি ঘটনার বর্ণনা দেন। পরে মঙ্গলবার বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেয় জাকির।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বলেন, সোমবার রাতে নিহত জেরিনের পিতা বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দয়ের করেছেন। মামলায় জাকির হোসেন ছাড়াও আরো ৩/৪ জনকে অজ্ঞাত করে আসামী করা হয়েছে।

ইতিমেধ্য জাকিরকে আটক করে আদালতে জবানবন্দি প্রদান শেষে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তার দেয়া তথ্য মতে, সিএনজি ড্রাইভার নুর আলম ও তার সহযোগী হৃদয়কে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।বাংলাদেশ জার্নাল

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com