জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা
৫৫দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
৪৩মিনিট
:
৩৭সেকেন্ড

সোমবার, ০১ জুন ২০২০, ০২:১৭ অপরাহ্ন

গাজীপুরে মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ নগরবাসী

খবরের আলো :

 

 

মো: মাহবুবুুর রহমান, গাজীপুর : মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ গাজীপুর মহানগরীর লাখ লাখ মানুষ। দিন কিংবা রাত, সব সময়ই মশার উপদ্রব। বিভিন্ন দোকানপাট ও বাসাবাড়িতে দিনেও কয়েল জ্বালিয়ে রাখতে হচ্ছে। সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ মশা নিধনে প্রতিশ্রæতি দিলেও তা কার্যকর হচ্ছে না। এতে আসন্ন ডেঙ্গু মৌসুম নিয়ে নগরবাসী উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দিলে এডিস মশা নিধনে বিদেশ থেকে কয়েক টন ওষুধ এনে মহানগরী ও বিভিন্ন পৌরসভায় বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। কিন্তু এবার আগেভাগেই শুরু হয়েছে মশার উপদ্রব। ঘরে-বাইরে সব জায়গায় মশা। কিন্তু নগরীর ৪০ লাখের বেশি মানুষের সুরক্ষায় কর্তৃপক্ষের মশক নিধনে কোনো কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে না।
ঘনবসতি হিসেবে পরিচিত গাজীপুর নগরী। সিটি করপোরেশনের ৫৭টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় যত্রযত্র ময়লা-আবর্জনা ফেলা হয়। ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। বেশিরভাগ এলাকায় ঢাকনাবিহীন ড্রেনেজ ব্যবস্থা। কোথাও কোথাও স্যুয়ারেজের পানি ড্রেন উপচে শাখা সড়কে ছড়িয়ে পড়ে। নোংরা পানির জলাবদ্ধতা এবং ময়লা-আবর্জনার স্তূপে মশা বংশবিস্তার করছে।
নগরীর ভোগড়া এলাকার বাসিন্দা পোশাক শ্রমিক রফিকুল ইসলাম জানান, দিন-রাত মশার যন্ত্রণায় পাগল হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। কয়েল জ্বালিয়ে ও মশারি টানিয়েও পরিত্রাণ মিলছে না। কোনাবাড়ি এলাকার ব্যবসায়ী খায়রুজ্জামান জানান, নগরীর শাখা সড়কগুলোর ড্রেনেজ ব্যবস্থা নাজুক। যত্রতত্র স্যুয়ারেজের পানি। সন্ধ্যার পর মশার উপদ্রবে রাস্তার পাশে দাঁড়ানো এমনকি হেঁটে চলাও মুশকিল হয়ে পড়েছে।
গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বর্জ্য পরিদর্শক মদন চন্দ্র দাস জানান, মশক নিধনে নগরীর আটটি জোনে ৬০টি ফগার মেশিন দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ওষুধ ছিটানোর কথা। এর বাইরে কয়েকটি ফগার মেশিন নগরীর টঙ্গী ও জয়দেবপুরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ব্যবহৃত হচ্ছে। আরও ফগার মেশিন আনা হচ্ছে। পর্যাপ্ত ওষুধ পাওয়া গেলে পুরো নগরীতে একযোগে মশক নিধন কার্যক্রম শুরু করা হবে।
গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এস এম সোহরাব হোসেন জানান, মশক নিধনে ওষুধ ও ফগার মেশিন প্রস্তুত রয়েছে। কোনো সংকট নেই। স্থানীয় কাউন্সিলররা প্রয়োজন মতো ওষুধ নিয়ে ছিটাতে পারবেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com