জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা
৫৫দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
৪৩মিনিট
:
৩৭সেকেন্ড

বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ০৯:২৬ অপরাহ্ন

নাটোরে আকাশে রং-বেরঙের ঘুড়ি উড়ানো যা অবাক করেছে সবাইকে।

দৈনিক খবরের আলো ঃ

শ্যাম কুমার, :নাটোর প্রতিনিধি :

বিকেল হলেই রং-বেরঙের ঘুড়ি উড়তে দেখা যাচ্ছে নাটোরের  আকাশে।

কেউ ঘুড়ি উড়াচ্ছেন বাড়ির ছাদে। কেউ বা আবার খোলা মাঠে বা নদীর ধারে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে একরকম বন্দি জীবন কাটাচ্ছে বড়াইগ্রাম বাসী।

ফলে শিশু-কিশোররা পড়েছে চরম অসুবিধায়। একদিকে স্কুল-কলেজ বন্ধ, অন্যদিকে খেলাধুলারও উপায় নেই।

সারাদিন টিভি, মোবাইল গেম, ফেসবুক চালিয়ে যেন হাপিয়ে উঠেছে তারা। তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকে এখন বাড়ির ছাদে ও খোলা জায়গায় ঘুড়ি উড়িয়ে আনন্দ লাভের চেষ্টা করছেন।

ঘুড়িপ্রেমীরা জানালেন, ‘আমাদের দেশে পঙ্খীরাজ, মালাদ্বার, কাউঠাদ্বার, চাপালিশ, চিলি, ডাউস চশমাদ্বারসহ বিভিন্ন নামের ঘুড়ি আছে।

তবে ঘুড়ির চেয়েও বেশি দৃষ্টি কাড়ে এর লেজ। ঘুড়ি অনেক আকৃতির ও রং-বেরঙের হয়ে থাকে। এর সঙ্গে ঘুড়ি উড়ানোর লাটাইয়ের নামও বেশ আকর্ষণীয়। যেমন- বাটিওয়ালা, মখুবান্ধা, মুখছাড়া ইত্যাদি।’

সাতোল বিলের  ধারে ঘুড়ি উড়াতে আসা স্বপন নামের এক ছাত্র বলেন, ‘ঘরে বসে বসে টিভি-সিনেমা দেখতে এখন আর ভালো লাগে না।

তাই  ঘুড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়ি।
সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এ ধরনের কর্মকাণ্ড মানুষের মনে চিত্ত-বিনোদনের আনন্দ দেখা দিয়েছে।

আর বেশী আকর্ষিত করছে তা হচ্ছে রাতে জোনাকীর মতন বিভিন্ন লাইটের মাধ্যমে ঘুড়ি উড়ানো।

এতে রাতের আকাশে আরও সুন্দর ঝলমলে লাগছে। আজ শনিবারে বিকালে সরেজমিনে দেখা যায়,নাটোর বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল ইউনিয়ন, নগর ইউনিয়ন, গোপালপুর ইউনিয়নের খোলা মাঠে বিলে, নদীর ধারে আকাশে অনেক ঘুড়ির সমারোহ যা আসলেই প্রকৃতি কে সুন্দর লাগছে।

এ বিষয়ে জোনাইল ইউপি সচিব শ্রী সনজয় কুমার চাকী বলেন, ঘুড়ি উড়ানো বাংলাদেশের প্রাচীন একটা খেলা। বিকাল হলেই আকাশে দেখা মিলছে অনেক রকমের ঘুড়ির সমারোহ।

আর ও বলেন বেশি আকর্ষিত করছে তা হলো রাতে ঘুড়ির মাধ্যামে বিভিন্ন রঙের লাইট দিয়ে ঘুড়ি উড়ানো যা বেশ অবাক করছে।

এতে মানুষের ভিতরে এক ধরনের আমেজ ও উৎসব মুখর লাগছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com