মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৩:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মাধবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান গাজীপুরে পোশাক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার ত্রিশালে রাস্তার দূর্ভোগে লালপুর-কৈতরবাড়ী ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা হলে অপরাধীদের মধ্যে ভীতিও থাকবে: কাদের ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাহাড়পুর একিয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিনব কায়দায় রোগীর সাথে প্রতারণা নবাবগঞ্জে অজ্ঞাত পরিচয় নারীর লাশ উদ্ধার মাধবপুরে করোনার ভাইরাসের সুযোগে বালু খেকোদের রমরমা ব্যবসা নৌকায় ভোট দেয়ার অপরাধে বিএনপি দলগতভাবেই এইসব অপকর্ম করেছিল -তথ্যমন্ত্রী বড়াইগ্রামে জোর পুর্বক ঘরবাড়ি ভাংচুর করে রাস্তা নির্মাণ

থানায় গিয়ে মায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলো তিন বছরের মেয়ে!

তিন বছরের শিশু কন্যা পায়ে পায়ে গিয়ে পৌঁছাল পুলিশ পোস্টে। উদ্দেশ্য মা-র বিরুদ্ধে নালিশ জানানো। অভিযোগের তালিকাও দীর্ঘ—স্কুলে পাঠান না মা, বিছানার বদলে তাকে খড়ের গাদায় শুতে বাধ্য করেন এবং তার চেয়ে ছোটভাইকে বেশি যত্ন করেন। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

তিন বছরের শিশুকে নির্দ্বিধায় পুলিশের কাছে এসে নালিশ জানাতে দেখে অবাক হন কবীরনগরের পাঁচপোখরি পুলিশ পোস্টের সাব ইন্সপেক্টর। শিশুটির সব অভিযোগ শুনে অবশেষে তার হাত ধরেই অভিযুক্তের সঙ্গে দেখা করতে যান তিনি।

সাহসী এই মেয়েটির নাম ফলক। তার বাবা মকসুদ খান মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন।

সাব ইন্সপেক্টর জিতেন্দ্র যাদব বলেন, ‘গ্রামবাসীরা আমাদের জানালেন ফলক সবাইকে জিজ্ঞাসা করেছে পুলিশ ঘর কোথায় আছে। একটা ছোট্ট বাচ্চাকে একা একা পুলিশ স্টেশনে আসতে দেখে খুবই অবাক হয়েছিলাম। ও এসে আমাকে বলল যাতে ওর মা আসমা খানকে আমি বকে দিই।কারণ জিজ্ঞাসা করলে সে বলে, তাকে মা স্কুলে পাঠান না, খড়ের গাদায় শুতে দেন এবং সাত মাস বয়সী ছোট ভাইকেই বেশি ভালোবাসেন।’

অভিযোগ শুনে ফলকের বাড়িতে যান পুলিশ কর্মকর্তা। মাকে বুঝিয়ে বলেন যাতে রোজ ফলককে স্কুলে পাঠান তিনি। অভিযোগ স্বীকারও করেছেন শিশুটির মা। তিনি জানান, সাত মাসের সন্তানের দেখভাল করতে গিয়ে মেয়ের খেয়াল রাখতে পারছেন না ভালো করে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমার জীবনে দেখা সবচেয়ে কমবয়সী অভিযোগকারী ও। তাই ওর হাত ধরেই বাড়ি গিয়েছিলাম সমস্যার সমাধান করতে।’

বড় হয়ে কী হতে চায়, সাংবাদিকরা সেকথা জানতে চাইলে ফলকের চটজলদি জবাব ‘ডাক্তার’। পুলিশদেরকেও তার খুব পছন্দ। ডাক্তার হতে চায় বলে সে একদিনও স্কুল কামাই করতে নারাজ ফলক।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com