শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৫:৩২ অপরাহ্ন

সাবেক সফল স্বাস্থ্য মন্ত্রী রুহুল হককে আবারও মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই

খবরের আলো  :

 

 

শেখ আমিনুর হোসেন,সাতক্ষীরা ব্যুরো চীফ: দেশের দক্ষিণাঞ্চলের সীমান্তবর্তী সাতক্ষীরা জেলাসহ দক্ষিণাঞ্চলের গণমানুষের প্রাণপ্রিয় নেতা সাতক্ষীরার উন্নয়নের রুপকার সাবেক সফল স্বাস্থ্য মন্ত্রী আন্তর্জাতিক হাড়জোড়া বিশেষজ্ঞ পরপর ৩ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. আ. ফ. ম রুহুল হককে আবারো দেশ ও দশের স্বার্থে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় সাতক্ষীরার ২২ লক্ষ আপামর জনসাধারণ। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হলেও মন্ত্রী সভায় স্থান হয়নি। ফলে থমকে যায় সাতক্ষীরার কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন। মন্ত্রীত্ব না থাকায় বিগত ৫ বছর তিনি নিজ এলাকার বাইরে খুব বেশি নজরও দিতে পারেননি। এতে করে তার হাতেই প্রতিষ্ঠিত হলেও এখনও পূর্ণতা পায়নি সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ। বর্তমানে কলেজটিতে এক প্রকার হ-য-ব-র-ল অবস্থার মধ্যে চলছে। সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোথাও কাঙ্ক্ষিত স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে না মানুষ। একই অবস্থা সারাদেশের স্বাস্থ্য সেবায়। তার মন্ত্রীত্বের সময়ে স্বাস্থ্য সেবায় য়ে অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছিল তা ম্লান হয়ে গেছে গত ৫ বছরে। এসব কারণে এবার তাকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় সাতক্ষীরাসহ সারাদেশের আপমর সাধারণ মানুষ। জেলারও স্বাস্থ্য সেবায় ডা. রুহুল হকের অবদান জনগণের নজর কেড়েছিল। তাই সাতক্ষীরা-৩ আসনে টানা তৃতীয়বারের মত নির্বাচিত সংসদ সদস্য, সাবেক সফল স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ. ফ. ম রুহুল হককে আবারো মন্ত্রী হিসেবে পেতে চায় সাতক্ষীরার ২২লক্ষ মানুষ।
ডা. রুহুল হক একজন শান্তি প্রিয় জনদরদী নেতা। তিনি সুফিসাধক খান বাহাদুর আহছান উল্লার দৌহিত্র। যে কারণে তিনি হানাহানি, বিশৃঙ্খলা পছন্দ করেন না। প্রতিহিংসার রাজনীতি ও বিরোধী দলের সমর্থকদের দমন বা হয়রানির কোন ঘটনা তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে ঘটেনি। বরং তার সময়ে নির্বাচনী এলাকার সকল মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছেন।
তিনি দিন-রাত পরিশ্রম করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এলাকার উন্নয়ন করে সর্বস্তরের জনতার দোয়ারে দোয়ারে গিয়ে উঠান বৈঠক করে সাধারণ মানুষের মন জয় করে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন।
সারা বিশ্বে বিশিষ্ট শৈল্য চিকিৎসক হিসেবে তার সুখ্যাতি রয়েছে। তারপরও তিনি সাতক্ষীরা সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেন। এর প্রেক্ষিতে বিগত ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেন। তিনি বিশ্ববিখ্যাত চিকিৎসক হওয়ায় শেখ হাসিনা তাকে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর দায়িত্ব প্রদান করেন। দায়িত্ব পাওয়ার পর তিনি স্বাস্থ্য বিভাগকে ঢেলে সাজিয়েছিলেন। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকাকালে সারা দেশের কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করে একসাথে সারা দেশে ১৬ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করে স্বাস্থ্যসেবাকে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছিলেন। চিকিৎসকদের মান উন্নয়ন, হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোকে আধুনিকায়নেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। যে কারণে তিনি সারাদেশের মানুষের হৃদয়ে একজন সফল মন্ত্রী হিসেবে আসন করে নেন। নিজ জেলা সাতক্ষীরাকে আধুনিক সাতক্ষীরায় পরিণত করার জন্য তিনি সাতক্ষীরাবাসির হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। তা ছাড়া তিনি দেবহাটা, আশাশুনি এবং কালিগঞ্জে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ, ২৬টি সাইক্লোন শেল্টার, একাধিক আশ্রয়ণ প্রকল্প, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, আশাশুনি ও দেবহাটায় ২টি কলেজ ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংস্করণ, অসংখ্যা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন নতুন ভবন নির্মাণ করণ, দেবহাটায় অত্যাধুনিক থানা ভবন নির্মাণ, আশাশুনি ও কালিগঞ্জে দুইটি ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতাল নির্মাণ, বড়দল সেতু, মানিকখালি সেতু, তেতুঁলিয়া সেতু, শোভনালী সেতু, বাঁশতলা সেতুসহ অসংখ্যা ব্রিজ-কালভার্ট তৈরি, সাতক্ষীরা বাইপাস ও আশাশুনি বাইপাস তার অক্লান্ত প্রচেষ্টায় আজ দৃশ্যমান, যুব উন্নয়নের মাধ্যমে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষিত বেকারের কর্মসংস্থান করাসহ অসংখ্যা উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং অনেক উন্নয়ন কাজ চলমান। বিশেষ করে বর্তমান তাঁর বিশেষ প্রতিশ্রুতি হিসেবে সাতক্ষীরায় আইটি পার্ক, বিশ্ববিদ্যালয়, রেললাইন ও পূর্ণাঙ্গ স্টেডিয়াম করতে চান তিনি। আগামীতে এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সাতক্ষীরার ২২লক্ষ মানুষ আবারও রুহুল হক এমপিকে পুনরায় মন্ত্রী হিসেবে পেতে চায়। দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম বলেন, ডা. আ. ফ. ম রুহুল হক সাতক্ষীরাবাসির গর্ব। তিনি শুধু সাতক্ষীরার সম্পদ নন তিনি সারা দেশের সম্পদ। তার কারণে আমরা শুধু দেবহাটা আশাশুনিতে নয় গোটা সাতক্ষীরা জেলায় উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। এখন আর স্বাস্থ্য সেবা নিতে মানুষকে ছুটে ঢাকা, খুলনা বা সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে যেতে হয় না। স্বাস্থ্য সেবা এখন মানুষের দোর গোড়ায়। সাতক্ষীরার মানুষের জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত হয়েছে। যে কারণে আমরা পারুলিয়াবাসী সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান ডা. আ. ফ. ম রুহুল কে আবারো স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে পেতে প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ কামনা করছি। নলতা এলাকার ফারুকুল কবির বলেন, ডা. আ. ফ. ম রুহুল হক স্যার একজন সাদা মনের সহজ, সরল মানুষ। তিনি গণমানুষের নেতা। সাতক্ষীরাবাসির নেতা। সাতক্ষীরার উন্নয়নের স্বার্থে আমরা আবারো তাকে মন্ত্রী হিসেবে পেতে চাই। সাতক্ষীরা সদরের নলকুড়া গ্রামের মৃত শেখ আজাদ হোসেনের ছেলে বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শেখ আলমগীর হোসেন বলেন, ডা. আ. ফ. ম রুহুল সাহেবের কারণে আমরা স্বপ্নের মেডিকেল কলেজ পেয়েছি, বাইপাস সড়ক পেয়েছি, আধুনিক সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল পেয়েছি। সে কারণে আমাদের প্রাণের দাবি তাকে আবারো মন্ত্রীর হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হোক।
সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক এড. ফাহিমুল হক কিসলু বলেন, প্রফেসর ডা. আ. ফ. ম রুহুল হক একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শৈল্য চিকিৎসক। তিনি স্বাস্থ্য বিভাগকে ঢেলে সাজিয়েছিলেন। তিনি একজন সফল স্বাস্থ্যমন্ত্রী। আমরা সাতক্ষীরাবাসির পক্ষ থেকে আবারো তাকে মন্ত্রী হিসেবে পেয়ে চায়।

জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক মো. আনিসুর রহিম বলেন, ডা. রুহুল হকের মতন মানুষের দেশের সম্পদ। স্বাস্থ্য বিভাগ কেন পররাষ্ট্রের মত গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ও তিনি সামলানোর যোগ্যতা রাখেন। যেকারণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রীত্বের বাইরে রেখেও গত ৫ বছর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ সভা সেমিনারে ডা. রুহুল হককে দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পাঠিয়েছেন। আবার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি পদে অধিস্থিত করে রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মত বড় প্রকল্প বাস্তবায়নেও তাকে গুরু দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তার অভিজ্ঞতার কারণে। ফলে শুধু সাতক্ষীরার ক্ষুদ্র স্বার্থে নয় দেশের বৃহৎ স্বার্থে এবার এই মানুষটিকে মন্ত্রী করা প্রয়োজন। তাকে শুধু আমাদের সাতক্ষীরার জনগণের জন্য প্রয়োজন না উনাকে দক্ষিণাঞ্চলের সকল জেলায় উন্নয়নের জন্য মন্ত্রীত্ব দেওয়া খুবই জরুরি বলে আমি মনে করি। সাতক্ষীরা জেলা সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শেখ আমিনুর হোসেন বলেন, স্বাধীনতার ৪৭ বছরেও সাতক্ষীরায় যে উন্নয়ন হয়নি আর ফ ম রুহুল হক মন্ত্রী থাকাকালীন উল্লেখ যোগ্য উন্নয়ন হয়েছে। তিনি একজন সৎ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, তাকে পূণরায় মন্ত্রীত্ব দিলে শুধু সাতক্ষীরাবাসী উপকৃত হবে না সারাদেশ উপকৃত হবে। স্বাস্থ্যসহ  যে কোন মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পেলেও তিনি গ্রহণ করতে প্রস্তুত। ইতিপূর্বে তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ছাড়াও অন্য অনেক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও সফলতার সাথে পালন করেছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com