শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ১০:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে যুবলীগ নেতা সুমনের ব্যবস্থাপনায় দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে ইদ বস্ত্র বিতরণ কোভিড যুদ্ধে এবার রণাঙ্গনে বিরুস্কা শ্রীপুরে ককটেল রেখে ব্যবসায়ীকে ফাঁসাতে গিয়ে সাংবাদিক পরিচয়দানকারী তিন যুবক ও এক নারী আটক মানিকগঞ্জে বোরো ধানকাটার উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক অসহায় মানুষের পাশে ঈদ উপহার নিয়ে দাড়াল সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম সুমন বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে তাড়াতে দুই ছেলের অমানবিক নির্যাতন! বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ভিসা জটিলতা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ রীতি ভেঙে স্বামীকে মঙ্গলসূত্র পরিয়ে বিয়ে, অতঃপর..! ইজারাদারদের দৌরাত্ম্য- সংশয় কাটেনি সন্দ্বীপবাসীর রাশিয়ার সেই এক ডোজের টিকা উৎপাদন হবে ভারতে

রাজবাড়ীতে বেড়েছে হলুদের আবাদ

খবরের আলো  ডেস্ক :

 

 

চাহিদা অনুযায়ী বাজারে দাম না পেলেও খুশি মনেই হলুদ চাষ করছেন রাজবাড়ীর চাষিরা। প্রায় বছর মেয়াদী সময়ে হলুদ আবাদ হয়ে থাকে। জেলায় সাধারণত আদা কাঠি, হরিন পালিয়া ও ডিমলা জাতের হলুদের আবাদ বেশি হয়।

জেলার প্রতিটি উপজেলায় কমবেশি হলুদের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে রাজবাড়ী সদর ও বালিয়াকান্দি উপজেলায় বেশি। প্রতি বিঘা জমিতে কীটনাশক প্রয়োগসহ হলুদ চাষ শুরু থেকে তোলা পর্যন্ত চাষিদের খরচ হয় ১৪ থেকে ১৬ হাজার টাকা। ভালো ফলন হলে প্রতি বিঘা জমিতে ৪৫ থেকে ৫০ মণ পর্যন্ত হলুদ উৎপাদন হয়ে থাকে। তবে এ বছর প্রতি বিঘায় ৩৫ থেকে ৪০ মণ উৎপাদন হয়েছে এবং কাঁচা হলুদের বাজার দরও গত বছরের চেয়ে কম।

গত বছর চাষিরা ৯০০ থেকে ১১০০ টাকা মণ বিক্রি করলেও এ বছর বিক্রি করছেন ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা দরে। তবে দাম একটু কম হলেও লোকসান হচ্ছে না হলুদ চাষিদের।

এ বছর জেলায় হলুদের আবাদ হয়েছে ১৩২৫ হেক্টর জমিতে আর গত বছর আবাদ হয়েছিল ১৩১০ হেক্টর জমিতে। যা গত বছরের তুলনায় ১৫ হেক্টর বেশি। এ বছর প্রতি মণ শুকনা হলুদ বাজারে ৫ হাজর টাকা থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

RAJBARI-HOLUDজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী এ বছর ৫৮০০ মেট্রিক টন শুকনা হলুদ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। যা গত বছর ছিল ৫৪০০ মেট্রিক টন। শুকনা হলুদের বাজার দর অনুযায়ী রাজবাড়ীতে প্রায় ২৯ কোটি টাকার হলুদ উৎপাদন ও বাজারজাত করা হবে।

হলুদ চাষিরা জানান, গত বছর চাষিরা যে দাম পেয়েছেন এ বছর সেটি পাচ্ছেন না। দাম একটু কম পেলেও লোকসান হচ্ছে না তাদের।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান জানান, জেলার পাঁচটির উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি হলুদের আবাদ হয়ে থাকে বালিয়াকান্দি ও সদর উপজেলায়। হলুদ বছরব্যাপী ফসল হওয়ায় সাথী ফসল হিসেবে কৃষকেরা এর আবাদ করে থাকেন। হলুদে তেমন কোনো রোগবালাই নাই বললেই চলে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com