শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ১০:৩৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে যুবলীগ নেতা সুমনের ব্যবস্থাপনায় দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে ইদ বস্ত্র বিতরণ কোভিড যুদ্ধে এবার রণাঙ্গনে বিরুস্কা শ্রীপুরে ককটেল রেখে ব্যবসায়ীকে ফাঁসাতে গিয়ে সাংবাদিক পরিচয়দানকারী তিন যুবক ও এক নারী আটক মানিকগঞ্জে বোরো ধানকাটার উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক অসহায় মানুষের পাশে ঈদ উপহার নিয়ে দাড়াল সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম সুমন বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে তাড়াতে দুই ছেলের অমানবিক নির্যাতন! বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ভিসা জটিলতা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ রীতি ভেঙে স্বামীকে মঙ্গলসূত্র পরিয়ে বিয়ে, অতঃপর..! ইজারাদারদের দৌরাত্ম্য- সংশয় কাটেনি সন্দ্বীপবাসীর রাশিয়ার সেই এক ডোজের টিকা উৎপাদন হবে ভারতে

প্রায় দুই বছরেও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ ঝর্ণার!

খবরের আলো  :

মোঃ আমিনুল ইসলাম, গাজীপুর জেলা সংবাদদাতাঃনিখুঁজ হওয়ার প্রায়ই দুই বছর পেরিয়ে গেলেও সন্ধান মেলেনি গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সিনাবহ গ্রামের রওশন আলমের মেয়ে নিখোঁজ ঝর্ণা আক্তারের ।
এ ঘটনায় থানায় মামলা হওয়ার পর পিবিআই পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের পরেও নিখোঁজ ঝর্ণার সন্ধান বের করতে পারিনি।
উল্টো মামলা তুলে নিতে বাদীকে আসামিরা হত্যার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধামরাই উপজেলার কাইজারকণ্ড গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে শাহাদাত হোসেনের সঙ্গে গত বছরে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার সিনাবহ গ্রামের রওশন আলম এর মেয়ে ঝর্ণা আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে এক লাখ টাকা যৌতুকের জন্য প্রায়ই ঝর্ণা কে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন নির্যাতন করে আসছিল।
গত বছরের সেপ্টেম্বরে যৌতুকের টাকা না পেয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্য ঝর্ণা কে মারধর করে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেয় স্বামী শাহাদত। পরে ওই রাতেই গৃহবধূর ঝর্ণা আক্তার স্বামীর বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন।
বিভিন্ন পত্রিকা ও টেলিভিশনে প্রচার হলেও কোনো সন্ধান মেলেনি।
এ ঘটনায় ঝর্ণা আক্তারের বাবা রওশন আলম বাদী হয়ে ঝর্ণার স্বামী শাহাদাত হোসেন, শ্বশুর আব্দুস ছাত্তার, শাশুড়ি হালিমা বেগম, দেবর সাইদুল, মোস্তফা, ননদ আমেনা আক্তার সহ সাত জনের নাম উল্লেখ করে ধামরাই থানায় গুমের অভিযোগ এনে মামলা করেন।
এ ঘটনায় ঝর্ণা স্বামী শাহাদাত হোসেন ,ননদ অামেনা ও দেবর সাইদুলকে গ্রেফতারের পর রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করেও পুলিশ তাদের কাছ থেকে কোন তথ্য বের করতে পারিনি। বর্তমানে শাহাদত জেলহাজতে থাকলেও অন্যরা জামিনে রয়েছে।
মামলার বাদী রওশন অালম অভিযোগ করেন। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য অাসামি মোস্তফা শ্যালক, মিজান তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছে। মামলার বাদী রওশন আলম বলেন আমি গরীব ও অসহায় বলে আজও আমার মেয়ের হত্যার ও গুমের বিচার পাইনি। সুত্র: ফেসবুক মেসেনজ্যার

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com