শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন

গাজীপুরে বিচারহীনতায় ভূগছেন সাংবাদিক পরিবার!!

খবরের আলো :

মোঃ আমিনুল ইসলাম, গাজীপুর জেলা সংবাদদাতাঃ ২২-১২-২০১৮ ইং  শনিবার সকাল ৮-৩০ মিনিটে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের শিমুলতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার ১ মাস পেরুলেও কোন আসামি গেপ্তার হয়নি বরং মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দিতেছে  বিবাদীরা। মামলা নং ৫৯/৮৬৬
মামলার ভূক্তভোগীরা যানায় মামলার  ১ ও ২ নং বিবাদী পলাতক রয়েছে বাকি আসামি কোড হয়তে জামিনে আসিয়া আমাদের স্বেচ্ছায়  মামলা প্রত্যাহার করিয়া আনার জন্য বিভিন্ন ধরনের ভয় ভীতি ও হুমকি প্রদান করিয়া আসিতে থাকে, তাছাড়া ১ ও ২ নং বিবাদী পলাতক থাকিয়া বিভিন্ন মোবাইলে ফোন দিয়া ভয়- ভীতি  হুমকি প্রদান অব্যাহত রাখিয়াছে।
হামলায় আহতরা হলো- শিমুলতলা গ্রামের মোছাঃ নাছিমা (৪২) মোছাঃ রিক্তা বেগম (২৫) মোছাঃ অযুফা (৬০) মোঃ মজনু (৩০)
মামলায় জানা যায়, প্রাপ্ত জমিতে বসত বাড়ী আছে থাকা সত্ত্বেও নতুন বাড়ি নির্মাণ করার সময় হঠাৎ করে  পূর্ব পরিকল্পনার মাধ্যমে মোঃ বাচ্চু মিয়া(৪০),  আব্দুর রশিদ(৪২) ও মজিবর রহমান(৪৭) সর্ব পিতা  মৃত ছিরফত আলি। মোঃ লিখন মিয়া(১৯) ও আব্দুল কাদির(১৮) মোসাম্মৎ তাসলিমা আক্তার(২৫),তাছলিমা ২ (৩৮),জনু মিয়া (৬০) সহ আরও একাদিক লোক নিয়ে  বাড়ির বিতরে  হঠাৎ করে রাম দা, লোহার রড, দা, লোহার বেলচা নিয়ে প্রবেশ করিয়া নাছিমা আক্তার উপর হামলা চালায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে এবং লাঠি দিয়ে রড দিয়ে এলোপাতারি আগাত করে, এক সময় মাথায় রাম দা দিয়ে আঘাত করলে মাথা ফেটে যায়।
ঘটনা দেখে মজনু মিয়ার স্ত্রী মোসাম্মৎ রিক্তা আক্তার রুম থেকে বের হলে তাকে মাথায় দা দিয়ে কুপ  দিলে মাথা কেটে যায়। রিক্তার চিৎকার শুনে মজনু মিয়া গড় থেকে বের হলে তাকে লোহার রড, বেলচা দিয়ে আগাত করে পায়ের গুরালির নিচে হাড় বাঙ্গা অবস্থায় ফেলে দেয়। ছেলের এমন অবস্থা দেখে তার বৃদ্ধ মা অজুফা বেগম ছুটে আসায় বৃদ্ধ মহিলাটিকেও লোহার রড ও লাঠি দিয়ে আগাত করে গুরুতর জখম করে  হাটুর নিচে বেঙ্গে যায়।
তাদের চিৎকার শুনে পরে এলাকাবাসী তাদেরকে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।  এ ফাঁকে সুযোগ পেয়ে মোঃ বাচ্চু মিয়া, আব্দুর রশিদ, লিখন, কাদির ও তাসলিমা আক্তার বাড়ি ফাঁকা পেয়ে তাদের ঘর নির্মান করার প্রায় ২০০০০ টাকা এবং ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন নিয়ে পালিয়ে যায়।
প্রথমে শ্রীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তী করা হলেও পরবর্তীতে রুগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থানান্তর করা হয়।
বর্তমানে আহত সবাই নিজ বাড়িতে রয়েছে, মামলার বাদী আক্ষেপ করে বলেন, আমার মা, চাচা, চাচি ও দাদি সংকটাপন্য অবস্থায় রয়েছে। আমাদের পক্ষে বর্তমানে রুগীদের চিকিৎসা খরচ চালানো দুঃসাধ্য হয়ে পরেছে। তাই আমি ২৩-০১-২০১৯ ইং তারিখ সকাল ১০ ঘটিকায় সময়  আর্থিক প্রয়োজনে আমার বাড়ির উত্তর পাশে আমার মালিকানাধীন জমি হয়তে গাছ কাটিতে গেলে উক্ত বিবাদীগণ জমির পাশে আসিয়া অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং আমি কোড হয়তে মামলা তুলে নেওয়ার আগ পর্যন্ত বিবাদী গণ আমাকে গাছ কাটিতে দিবেনা বা আমকে ও আমার পরিবারের লোকজনকে কোন প্রকার কাজ কর্ম করিতে দিবেনা। বিবাদীদের হুমকির কারনে আমি গাছ কাটিতে পারিনায়। তাছাড়া বিবাদীগণ সুযোগ বুঝিয়া মারপিটসহ খুন জখম করিবে বলিয়া হুমকি প্রদান করেন।
বিবাদী বাচ্চু মিয়া ও মজিবর রহমান এর ফোনে একাধিক বার ফোন করেও কোন সারা পাওয়া যায়নি।
এলাকার গন্যমান্য লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, উক্ত জমির মালিক বাদী পক্ষ। তারা একাদিক বার গ্রাম্য শালিশ করেও বিবাদীদের কাছ থেকে কোন ফন পায় নি,বিবাদীগন এক দরনের সন্তাস ও ভূমি দস্যু বটে।তাদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান।
অত্র ওয়ার্ড মেম্বার আশরাফুল হোসেন জানান মারপিট ও গাছ বাদা দেওয়ার ঘটনা সম্পর্কে বাদী পক্ষ আমাকে জানিয়েছে, এ বিষয়টি আমি অবহিত আছি।
পরবর্তিতে মামলার বাদী নাজমুল ইসলাম শ্রীপুর থানায় বিবাদীদের বিরুদ্ধে জি.ডি দায়ের করেন এবং পলাতক বিবাদীদের আইনের আওতায় এনে শ্বাস্তির দাবি জানান এবং আইনি সহযোগিতা চান।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com