বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১১:১৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মাধবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান গাজীপুরে পোশাক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার ত্রিশালে রাস্তার দূর্ভোগে লালপুর-কৈতরবাড়ী ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা হলে অপরাধীদের মধ্যে ভীতিও থাকবে: কাদের ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাহাড়পুর একিয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিনব কায়দায় রোগীর সাথে প্রতারণা নবাবগঞ্জে অজ্ঞাত পরিচয় নারীর লাশ উদ্ধার মাধবপুরে করোনার ভাইরাসের সুযোগে বালু খেকোদের রমরমা ব্যবসা নৌকায় ভোট দেয়ার অপরাধে বিএনপি দলগতভাবেই এইসব অপকর্ম করেছিল -তথ্যমন্ত্রী বড়াইগ্রামে জোর পুর্বক ঘরবাড়ি ভাংচুর করে রাস্তা নির্মাণ

অবৈধ নবজাতককে সাতক্ষীরায় আড়াই লাখ টাকায় বিক্রি! শিশু বিক্রির চক্র বহাল তবিয়তে

খবরের আলো :

 

 

শেখ আমিনুর হোসেন, সাতক্ষীরা ব্যুরো চীফ: এক নারীর অবৈধ সন্তান জন্মদানের ২০ ঘণ্টা পার না হতেই এক ক্লিনিক মালিক আড়াই লাখ টাকায় ওই সন্তান বিক্রি করে  দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। রবিবার দুপুর দু’ টার দিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের নিকটবর্তী হার্ট ফাউণ্ডশেন এণ্ড ইনসেনটিভ কেয়ার হসপিটাল ওই বাচ্চার জন্ম হয়।
যশোরের শার্শা থানাধীন বাগআঁচড়া গ্রামের ফাতেমা খাতুন জানান, একই এলাকার আতিয়ার রহমানের ছেলে আক্তারুলের সঙ্গে চার বছর আগে তার বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পর সিজারের একটি কণ্যা সন্তান জন্ম হওয়ার পরপরই তার স্বামী মালয়েশিয়ায় চলে যায়। স্বামী বিদেশ চলে যাওয়ার শ্বশুর শ্বাশুড়ি তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতো। একপর্যায়ে অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাপের বাড়িতে চলে আসেন। সেখানে কলারোয়ার কাজীরহাটের এক মোটর ম্যাকানিক বর্তমান যশোরের সাত মাইলের একটি মোটর গ্যারেজে কর্মরত আক্তারজ্জমানর সঙ্গে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিয়ের কথা বলে আক্তারুল তার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। একপর্যায়ে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে আক্তারুল তার সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছেদ করে। পরবর্তীতে বিষয়টি তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন জানতে পারে। তার স্বামী মালয়েশিয়া থেকে তাকে জানায় যে, ওই বাচ্চা সে মেনে নেবে। বিষয়টি জানতে পেরে তার গ্রামের সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য খোদেজার স্বামী আব্দুল্লাহ যোগাযাগ করে কলারোয়া সদরের মনোয়ারা নার্সিং হোমের মালিক হাতুড়ে ডাক্তার মনোয়ারা সঙ্গে। তিনি তার ক্লিনিকে বাচ্চা সিজার করানোর কথা বলে একটি দিন নির্ধারণ করে দেন।
ফতেমার স্বামীর পরিবারের সদস্যরা জানান, ফতেমার গর্ভে অবৈধ সন্তান আসার বিষয়টি জানতে পেরে মনোয়ারা নার্সিং হোমের মালিক মনোয়ারা খাতুন, খাদিজা মেম্বরের স্বামী আব্দুল্লাহ ও ফতেমার মা নাছিমার যোগসাজসে নবজাতককে আড়াই লাখ টাকার বিনিময়ে ক্লিনিক থেকে দিয়ে দেওয়ার জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। সে অনুযায়ি গত ২ ফেব্রুয়ারি তড়িঘড়ি করে আব্দুল্লাহ তাকে (ফাতেমা) তাকে মনোয়ারা ক্লিনিকে ভর্তি করান। সেখানে তিন দিন রাখার পর কলারোয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডাঃ বেলাল হোসেন সিজার এখনই করার সময় হয়নি উল্লেখ করে তাকে বাড়িতে ফিরিয়ে দেন। সে অন্যত্র সিজার করাতে পারে এমন আশঙ্কা দেখা দেওয়ায় আব্দুল্লাহ পুলিশ এনে মনোয়ারার কথামতো সিজার করার হুমকি দেয় তার মা নাছিমাকে। একপর্যায়ে তাকে গত রবিবার সকালে তার প্রতিবেশী চাচী মঞ্জুয়ারার ও সাতক্ষীরা শহরতলীর চালতেতলার ডাঃ জামিরুলের মাধ্যমে নয় হাজার টাকা চুক্তিতে ডাঃ ফয়সাল আহম্মদের মালিকানাধীন হার্ট ফাউন্ডেশন এণ্ড ইনসেনটিভ কেয়ার হসপিটালের তিন তলার ১০ নং কেবিনে ভর্তি করা হয়। রবিবার দুপুরে ডাঃ দেবদুলাল সরকার তার সিজার  করলে পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ডাঃ মনোয়ারা হার্ট ফাউন্ডেশনের সামনে মেইন রোর্ডের বিপরীতে অবস্থান করে তার মা নাদিয়াকে দিয়ে নবজাতক পুত্র সন্তানকে নিয়ে যায়।
ফাতেমার এক আত্মীয় মঙ্গলবার সকালে এ প্রতিবেদককে জানান, ডাঃ মনোয়ারা, আব্দুল্লাহ ও মঞ্জুয়ারা মিলে আড়াই লাখ টাকার বিনিময় তাদেরই পাশের গ্রামের এক বিত্তশালীর কাছে ফাতেমার গর্ভর সন্তানকে বিক্রি করেছে। পরে সাংবাদিকদের ভয়ে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের সহায়তায় মঙ্গলবার বিকাল চারটার দিকে ওই নবজাতককে ক্লিনিকে ফিরিয়ে আনা হয়। যদিও সিজারের পর পাঁচ দিন রাখার কথা থাকলেও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ নিজেদেরকে বাঁচাতে মঙ্গলবার বিকাল পাঁচটার দিকে ফাতেমাকে বের করে দিয়েছে।
জানতে চাইলে ডাঃ দেবদুলাল সরকার জানান, তিনি সিজার করেছেন ঠিকই । পরবর্তী কোন খবর তিনি রাখেন না।
কলারোয়া মনোয়ারা নার্সিং হোমের মালিক মনোয়ারা খাতুন নিজেকে আনোয়ারা খাতুন পরিচয় দিয়ে বলেন, তিনি একটি অবৈধ সন্তানের ভবিষ্যৎ গড়তে চেয়েছিলেন। শিশুটিকে বিক্রির অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।
মঞ্জুয়ারা খাতুন জানান, প্রতিবেশী হিসেবে ফাতেমাকে তার বাপের বাড়ির এলাকার গ্রাম ডাক্তার জামিরুল ইসলামের মাধ্যমে হার্ট ফাউন্ডেশনে ভর্তি করিয়াছেন।
হার্ট ফাউন্ডেশন এণ্ড ইনসেনটিভ কেয়ার হসপিটালের ব্যবস্হাপক রবিউল ইসলাম বলেন, বাচ্চা বিক্রির বিষয়টি তারা জানেন না। মঙ্গলবার বিকালে বাচ্চাকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার পর তারা থাকতে না চাওয়ায় ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com