শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
শেরপুরে গাঙচিলের হেমন্তকালীন সাহিত্য আড্ডা অনুষ্ঠিত দামুড়হুদায় প্রতিবন্ধী দিবসে হুইল চেয়ার বিতরণ দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত মেম্বার কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট সেমিফাইনালে দেউলী সবুজ সংঘ জয়ী “বেনাপোল মুক্ত দিবস” উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সংবাদকর্মী রশিদ আহমদের উপর প্রাণঘাতী হামলায় বদরপুর প্রেসক্লাবের নিন্দা বঙ্গবন্ধু জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপের মেঘনা গ্রুপে শেরপুর-মানিকগঞ্জের খেলা ড্র  রাতাবাড়ির বিধায়ক রামকৃষ্ণনগর পৌরসভার নির্বাচনের তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে সৈয়দপুরে ‘আটকেপড়া পাকিস্তানি’ নাম পরিবর্তনের দাবী উঠলো এসপিজিআরসি’র ৪৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে অঞ্জন ডেকার প্রয়াণে আসাম মুখ‍্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্বের শোক ৮ গ্রামের মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছেন বাঁশের সাঁকোতে

না ফেরার দেশে চলে গেল জগন্নাথের মেধাবী ছাত্র নীরব

খবরের আলো :
শেখ আমিনুর হোসেন,সাতক্ষীরা ব‍্যুরো চীফ: টানা দুই বছর জীবনের সাথে যুদ্ধ করে মরণব্যাধি ক্যান্সার কেড়ে নিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষ সম্মানের মেধাবী ছাত্র ও সাতক্ষীরার ছেলে এএইচ মোকলেছুর রহমান নীরবের জীবন। শুক্রবার দুপুরে সাতক্ষীরার বেসরকারি সিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় এএইচ মোকলেছুর রহমান ওরফে নীরব। তার বয়স হয়েছিল ২৫ বছর। সাতক্ষীরা শহরের সরকারপাড়ার কাজী এনামুল হকের পুত্র নীরবের পাকস্থলিতে ক্যান্সার ধরা পড়ে বছর দুয়েক আগে। এরপর প্রথমে ঢাকার ডেল্টা,পরে ভারতে চিকিৎসার পর তার অবস্থার কিছুটা উন্নতিও হয়। কিছুদিন আগে সে ফের অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে আবারও চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। সম্প্রতি সাতক্ষীরা শহরের ফারজানা ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছিল নীরব। দুদিন আগে তার অবস্থার অবনতি হতে থাকায় তাকে ভর্তি করা হয় সাতক্ষীরার সিবি হাসপাতালে। সেখানে মারা যায় নীরব।

বন্ধুদের সার্বিক সহায়তায় চলছিল নীরবের চিকিৎসা। দিনের পর দিন তারা অর্থ সংগ্রহ করে নীরবকে বাঁচিয়ে রাখার সব চেষ্টা চালিয়েও যাচ্ছিল। কিন্তু তাদের সব চেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়ে চির নিদ্রায় চলে গেল নীরব। এর আগে গত ২৮ সেপ্টেম্বর নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয় নীরব ‘ এইটুকু মেসেজ লিখবার জন্য আল্লাহ হয়তো আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। আল্লাহ যেনো আমার জন্য বেহেশত নসিব করেন। দোয়া করবেন’।
নীরবের অকাল মৃত্যুতে শোকাহত তার সহপাঠী বন্ধুরা। শোকে মুহ্যমান তার বাবা এনামুল হক, মা জোলেখা পারভিন এবং ভাই বোনসহ সব প্রতিবেশি।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসানের বন্ধু অরুপ সরকার জানান, মৃত্যুর শেষ কয়েক দিন আগে পর্যন্ত প্রতিদিন ৫ হাজার টাকা করে স্যালাইন ও ঐষধ লেগেছে। সেটিও আমরা বিভিন্নভাবে জোগাড় করছি। হাসান বাঁচতে চেয়েছিলো। আমরাও সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি। কিন্তু মৃত্যুর কাছে হেরে গেছি আমরা।
হাসানকে তত্বাবধায়নে রাখা ডাক্তার খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারি অধ্যাপক ডা. মো.মনোয়ার হোসেন বলেন, হাসানকে প্রথমদিকে অপারেশনের কথা বলেছিলাম কিন্তু রাজি হয়নি। পরবর্তীতে ক্যামোথেরাপি দেওয়া হয়। লিভার একেবারে নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো। যা চিকিৎসাসেবার আওতার বাইরে চলে যায়। তার পরিবারকে আগেই সব জানানো হয়েছিলো। বিকালে শহরের কোর্ট মসজিদে জানাযা শেষে সন্ধ্যায় রসুলপুর সরকারি গোরস্থানে নীরবকে দাফন করা হয়েছে। এদিকে নীরবের অকাল মৃত্যুতে তার পরিবার ও সহপাঠী বন্ধুরাসহ সমগ্র জেলায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com