শনিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :

কমলগঞ্জে বরযাত্রী গাড়িসহ বিভিন্ন গাডিতে দুধর্ষ ডাকাতি: ইউপি সদস্যসহ আহত-১৩

খবরের আলো :

মো:মিজানুর রহমান,কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারেরর কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর-পীরেরবাজার সড়কে ময়না বুড়ির ঘর সংলগ্ন এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বরযাত্রীবাহী ১০টি গাড়িতে দুধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। ৪টি গাড়ি ভাঙচুর করে বরযাত্রীদের নগদ অর্থসহ একাধিক মোবাইল ফোন ও মহিলাদের স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়েছে।

পুলিশ সাথে নিয়ে বরযাত্রীদের উদ্ধারে যাওয়া ২ ইউপি সদস্যসহ ব্যবসায়ীদের উপর ২য় দফা হামলা চালিয়ে আহত করে ও গাড়ি ভাঙ্গচুর করে নগদ অর্থ ও মোবাইল ফোনসহ দু’দফায় প্রায় ৮ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টায় এ ঘটনাটি ঘটে।

আক্রান্ত বরযাত্রী ও উদ্ধারে যাওয়া আহত ব্যবসায়ীরা জানান, শমশেরনগর-পীরের বাজার সড়কের ময়না বুড়ির ঘর সংলগ্ন এলাকায় একটি প্রাইভেট কার এলোপাতাড়িভাবে ফেলে অতর্কিতভাবে ২০ থেকে ২৫ জনের ডাকাতদল দা, লাঠি ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। বিয়ের বরযাত্রীবাহী চারটি গাড়ি ভাঙচুর করে ১০ গাড়ি থেকে ডাকাতদল নারী পুরুষদের কাছ থেকে নগদ অর্থ, স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইলফোন সহ প্রায় ৮ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটে নেয়।

বরযাত্রী সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার অবরসপ্রাপ্ত শিক্ষক সুরৎ পাল বলেন, বরযাত্রী সিলেট রিজার্ভ পুলিশের সদস্য অলক পালসহ ডাকাতদের হামলায় বরযাত্রীদের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। খবর পেয়ে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির কয়েকজন সদস্যকে নিয়ে বরযাত্রীদের উদ্ধারে গেলে ডাকাতদল তাদের উপরও দ্বিতীয় দফা হামলা চালিয়ে ইউপি সদস্যসহ কয়েকজনকে আহত করে। আহতরা রাতেই বিভিন্ন হাসপাতাল ও ডিসপেন্সারীতে চিকিৎসা গ্রহণ করেন।

ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান চৌধুরী, ব্যবসায়ী আনোয়ার খান, সাবেক সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পিকআপসহ পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যাবার কিছু দুরে পুলিশ থেমে যায়। এ সময় একটু এগিয়ে গেলেই ডাকাতদল হামলা চালিয়ে ইউপি সদস্য আজিজের নগদ ৮ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন লুটে নেয় ডাকাতদল। তাছাড়া তার প্রাইভেট কারও ভাঙ্গচুর করে।

ব্যবসায়ী আনোয়ার খান, সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিককে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। এসময় পুলিশ সদস্যরা দ্রুত স্থান ত্যাগ করে। ইউপি সদস্য আজিজ, ব্যবসায়ী আনোয়ার ও আবু বক্কর সিদ্দিক আরও বলেন, পুলিশ না বললে তারা সামনের দিকে এগিয়ে যেতেন না। বিষয়টি জানাজানি হলে রাতে বিক্ষোব্দ লোকজন শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির সামনে এসে জড় হয়। পরে কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান এসে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন।

শমশেরনগর ফাঁড়ির এস.আই. শাহ আলম বলেন, মোবাইল ট্রাকিং করে পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। তবে কেউ লিখিত কোন অভিযোগ দেয়নি। কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান জানান, খুব গুরুত্বের সাথে তদন্ত করে দুর্বৃত্তদের ধরার ও লুন্ঠিত মোবাইল ফোনগুলি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। তিনি আরও বলেন, ঘটনার সময় পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে টহলে ছিল। আর পুলিশ ফাঁড়িতে যে কয়েকজন সদস্য ছিল তারাই সেখানে গিয়েছিল।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com