শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ১১:০৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
অন্ন বস্ত্রের সমাধানের পর গৃহহীনদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা -তথ্যমন্ত্রী   বিত্ত কখনো রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা -তথ্যমন্ত্রী বাইডেনের শপথের সব আয়োজন সম্পন্ন, নজিরবিহীন নিরাপত্তা শিগগিরই ভ্যাকসিন বিতরণ কার্যক্রম শুরু : সংসদে প্রধানমন্ত্রী সিরাজগঞ্জে অবৈধ ৩টি ইটভাটায়  ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ লক্ষ টাকা জরিমানা নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি বেলকুচিতে আলোচিত পিতা-পুত্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আটক স্পেনে তীব্র তুষারপাতে জনজীবন অচল: যান চলাচল বন্ধ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা গ্রেফতার দোহারে অবৈধ ড্রেজার পাইপ ভেঙ্গে দিল প্রশাসন 

রাস্তার নারীকে সাহায্য করতে চেয়েছিলেন তামিম-মুশফিকরা!

খবরের আলো  ডেস্ক :

 

 

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা—ভয়ঙ্কর ও ন্যক্কারজনক এই ঘটনাটি নাড়া দিয়ে গেছে পুরো বিশ্বকেই। এই হামলা নিয়ে বেশ কয়েকটি ভিডিও ভাইরাল হয়। এর মধ্যে ১৬ মিনিট ৫৬ সেকেন্ডের একটি ভিডিও দেখতে পাওয়া যায় ইন্টারনেটে; যা আল নূর মসজিদে হামলার সময় হামলাকারী নিজেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লাইভ করছিলেন।

১১ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, মসজিদ থেকে বেরিয়ে দেয়ালের ফাঁকা অংশ দিয়ে রাস্তায় অবস্থান করা এক নারীর দিকে দুটি গুলি ছুড়েছেন ওই হামলাকারী। মসজিদ থেকে রাস্তায় বেরিয়ে আরও দুটি গুলি করেন তিনি। এরপর যখন ওই নারী ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলছিলেন তখন হামলাকারী আরও দুটি গুলি করেন। ঘটনাস্থলেই মারা যান অজ্ঞাত ওই নারী। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ফিজিও শ্রীনিবাস চন্দ্রশেখর জানিয়েছেন, ওই অজ্ঞাত নারীকে বাঁচাতে চেয়েছিলেন তামিম ইকবাল-মুশফিকুর রহিমরা।

তখন স্থানীয় সময় ১টা ৪০ মিনিট। অনুশীলন শেষে ওই সময় শহরের হ্যাগলি পার্কমুখী সড়ক দিন এভিনিউতে আল নুর মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে যাচ্ছিলেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। মসজিদে প্রবেশ করার ঠিক আগমুহূর্তে এক অজ্ঞাত নারী বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের সাবধান করেন যে, ভেতরে একজন পিস্তল হাতে ঢুকেছেন এবং গোলাগুলি করছেন।

অজ্ঞাত নারীর ওই সাবধানবাণী শুনে কাছেই দাঁড়িয়ে থাকা টিম বাসে উঠে পড়েন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা এবং সেই বাসের মেঝেতে শুয়ে পড়েন। এ সময় তারা দেখতে পান মসজিদটি থেকে মাত্র ৪০ গজ দূরে আচমকা একজন নারী রাস্তায় পড়ে যান। বাসে থাকা সবাই ভেবেছিলেন, অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ওই নারী। এ সময় ওই নারীকে মেডিকেলে নিতে হবে ভেবে তাকে সাহায্য করতে চেয়েছিলেন তারা।

শুধু তা-ই নয়, বাস থেকেই তারা দেখতে পান, মসজিদের সামনে অনেকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছেন। অনেকে রক্তাক্ত শরীর নিয়ে বেরিয়ে আসছেন মসজিদ থেকে; যা দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ক্রিকেটাররা। এর ৮-১০ মিনিট পর ওই টিম বাস থেকে নেমে স্টেডিয়ামে ফিরে যান তামিম-মুশফিকরা। বিষয়টি উঠে এসেছে ফিজিও চন্দ্রশেখরের অভিজ্ঞতার বর্ণনা থেকে।

নৃশংস এ ঘটনার বর্ণনায় বাংলাদেশ দলের ফিজিও বলেন, ‘যখন আমরা মসজিদে পৌঁছাই, আমরা বুঝতে পারি আমরা গোলাগুলির মধ্যে এসে পড়েছি। আর মাত্র পাঁচ মিনিট আগে পৌঁছালেই মসজিদের ভেতর থাকতেন ক্রিকেটারদের অনেকে এবং নিশ্চিত ফায়ারিং লাইনেই থাকতেন। এ সময় আমরা দেখতে পাই, একজন নারী রাস্তায় পড়ে যান। প্রথমে ভেবেছিলাম তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।’

‘তাকে মেডিকেলে নিতে হবে। ছেলেদের অনেকে উনাকে সাহায্য করতে চাইছিল। তবে এরপর বুঝতে পারি, এটি সাধারণ কোনো ঘটনা নয়। তখন আবার গুলির আওয়াজ শোনা গেল। আমরা আবারও শুয়ে পড়ি। আমাদের মাঝে ভীতির সঞ্চার হয়। এ সময় অনেক গুলির শব্দ শোনা যায়। মানুষজনের চিৎকার-চেঁচামেচির আওয়াজ শুনতে পাই। এ রকম করে ৮-১০ মিনিট কাটে।’

‘আমাদের তখন কোনো বোধই ছিল না, একপর্যায়ে আমরা বাসের জানালা দিয়ে দেখার চেষ্টা করি। ওই সময় অনেকে আমাদের কাছে পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইছিলেন। তবে প্রাথমিকভাবে তেমন প্রতিক্রিয়া জানাতে পারিনি। আসলে এ ধরনের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে আপনার ব্রেন আপনাআপনিই জমে যাবে। কারণ আপনি আতঙ্কিত থাকবেন। সেটাই আমাদের সবার ক্ষেত্রে হয়েছে।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com