মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে অবৈধ ৩টি ইটভাটায়  ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ লক্ষ টাকা জরিমানা নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি বেলকুচিতে আলোচিত পিতা-পুত্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আটক স্পেনে তীব্র তুষারপাতে জনজীবন অচল: যান চলাচল বন্ধ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা গ্রেফতার দোহারে অবৈধ ড্রেজার পাইপ ভেঙ্গে দিল প্রশাসন  সালমান এফ রহমানের দোহার – নবাবগঞ্জে উন্মুক্ত হলো ওয়াজ মাহফিল বদলগাছীর কোলা ইউনিয়ন কে মডেল ইউনিয়ন গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছেন চেয়ারম্যান স্বপন নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন রাজধানীর মিরপুরে নতুন বছর উদযাপনের বিশেষ আয়োজন

আশুলিয়া অপহরণের ১১ দিন পর ব্যবসায়ী উদ্ধার,আটক ৩

খবরের আলো :

 

 

রাজু হাওলাদার স্টাফ রিপোর্টার : সোলার বিদ্যুতে আলোতে টিপটিপ করে জলছে বনের ভিতের থাকা ছোট ঘরটি। ইদ্রিসের হাত-পায়ে বাঁধা লোহার শিকল খুলে গহিন বনের ভিতরে নিয়ে যায় বন্ধু রাজুসহ কয়েকজন। তাকে সামনে রেখে কবর খুড়া হয়। কারো হাতে লোহার শাবল, দা ও ছুরি। এসময় রাজু, মাজেদা ও এমানুল সহ কয়েকজন বলে, তোর পরিবার যদি ৫০ লাখ টাকা না দেয়, তাহলে এখানে মাটি চাপা দিয়ে দিবো।

এরমধ্যে আমার ছেলে নাসিরকে ফোন দেয় অপহরনকারী এনামুল।

এনামুল :কালকের ভিতরে সব টাকা জোগাড় করে রাখবে। নাসির: একটু আব্বার কাছে দেওয়া যাবে। এমানুল; না, টাকা না দিলে কালকের মধ্যে যা করার করবো।

ইদ্রিস খান: বাবা নাসির, তোমরা যেভাবে পারো আমাকে বাঁচাও। নাসির: আমার বাবাকে ক্ষতি কইরেন না। যেভাবে পারি টাকা জোগাড় করতেছি। এনামুল: আর তুমি এখন ১০ হাজার টাকা পাঠাও, বাকী টাকার ব্যবস্থা হইছে। নাসির; ১০ হাজার টাকা দিছি। এনামুল; আর বাকী টাকা খবর কি? নাসির: আমরা এখনও ব্যবস্থা করতে পারি নাই। আমরা দোকান বিক্রি করতে চেষ্টা করছি।

ইদ্রিস খান: নাসির, বাবা, আমার মুখে দিকে চায়া, আমার খাইতে দেয় নাই। আমারে খুব মারতাছে। সুদে পারো, যেমনে পারো, আমারে বাঁচাও। আমার বাড়ি, গাড়ি যা আছে সব বেইচা উদ্ধার করে নাও। আমি বাইচা থাকলে সব হবে। আমারে বাঁচায়া নেও। কোন প্রশাসেনর কাছে যাও না। তাহলে আমার মুখ আর দেখবে না। নাসির শুনছো।

এমন লোমহর্ষ কথোপোকথন চলতে পরে আশুলিয়া থানায় বিষয়টি লিখিত ভাকে জানায় ছেলে নাসির হোসেন। এভাবে কাঁটতে থাকে দিনের পর দিন। বাড়তে থাকে উৎকন্ঠা।গত ২৫ মার্চ রাতে ২০ বছরের পুরোনো বন্ধু রাজু তালুকদার ব্যবসায়ী ইদ্রিস খান সিলেটের যাওয়া কথা বলে এভাবেই অপহরন করে। ৯ জনের চক্রটি গত ১৫ দিন পরিকল্পনা করে তাকে অপহরন করে টাঙ্গাইলের শখীপুরের প্রত্যন্ত গ্রামে নিয়ে আটকে রাখে। এরআগেও  পরিচিত মাজেদার কৌশলে পার্লারের রিমু নামে এক নারীর সঙ্গে মুঠোফোনে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি করে দেয়। তখনো অপহরনের চেষ্টা চালায় ব্যর্থ হয়। কিন্তু মাজেদার কৌশল আর বন্ধু রাজুর পরিকল্পনায় সিলেটে যাওয়ার কথা বলে এভাবেই শেষ পযন্ত অপহৃত হয়েছিলো ইদ্রিস খান। ইদ্রিস খানের বাড়ি আশুলিয়া থানার কলতাসুতি গ্রামে।

মামলা তদন্ত কর্মকর্তা ও আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক মনিরুজ্জামান (পিপিএম)বলেন আমারা পুলিশের দুইটি দল কাজ শুরু করি। একটি দল অপহরনকারীদের সঙ্গে টাকা লেনদেনের বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে সময় নিচ্ছে। অপর দলটি অপহৃতের খোঁজে কাজ করে। প্রথমে ইদ্রিসের বাড়িতে ভাড়া থাকে মাজেদা বেগমকে আটক করি। তার তথ্যের ভিত্তিতে বাকীদের সনাক্ত করি ও অভিযান চালাই। পরে ১১ দিন পর শুক্রবার টাঙ্গাইলের শখীপুর থানার দায়রাপুর গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বনের ভিতরে রাজ্জাকের বাড়ি থেকে অপহৃত ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করা হয়। তার হা-পা লোহার শিখল দিয়ে বাঁধা ছিলো। ঘরটি দেখে মনে হয়েছে, বিভিন্ন অপরাধ সংঘটিত করার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে আশুলিয়ায় থানায় সংবাদ সম্মলনের মাধ্যমে এমন লোমহর্ষ তথ্য জানায় অপহৃত ব্যবসায়ী ও পুলিশ।

আটককৃত অপহরনকারীরা হলো-টাঙ্গাইলেল শফিপুর দায়রাপুর গ্রামের মৃত সূর্যত আলীর ছেলে মো. রাজ্জাক, কুষ্টিয়ার খোকসা থানার ওসমানপুর গ্রামের মালাল শেখর ছেলে এনামুল। অপরজন গাজীপুরের কাশিমপুর থানার হাতিমারা গ্রামের আব্দুল হকের মেয়ে মাজেদা বেগম। তবে রাজু তালুকদার ও চালক মুন্নাসহ বাকীরা পালাতক রয়েছে।

এ বিষয়ে আশুলিয়ার থানার ওসি (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ জানান, আমরা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অক্ষত অবস্থায় ব্যবসায়ী ইদ্রিস খান উদ্ধার করেছি। আটক তিন অপহরনকারীকে ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com