মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন

শ্যামনগরের সাহিদা বেগম ও তার পরিবার সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে মুক্তি চান

খবরের আলো :

 

 

শেখ আমিনুর হোসেন, সাতক্ষীরা ব্যুরো চীফ: স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে সতীনপুত্র আবুল কাশেম সরদার তাদেরকে উচ্ছেদের জন্য জমিজমা ও ভিটেবাড়ির সীমানা নিয়ে পরিকল্পিত ষড়যন্র শুরু করেছে। এরই জেরে আমার দুই পুত্র ইউসুফ, আইয়ুব সরদার ও পুত্রবধু সাবিনা সহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে শ্যামনগর থানায় মামলা করা হয়েছে। এই মামলায় ইউসুফ ও আইয়ুব বাদ অন্যরা জামিন পাওয়ার পর থেকে আবুল কাশেম ও ফজলু বাহিনী তাদের হুমকি ধামকি দিচ্ছে। এ নিয়ে তারা আতংকের মধ্যে রয়েছছন। সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে একথা বলেন শ্যামনগর উপজেলার সোরা গ্রামের ইসমাইল সরদারের দ্বিতীয় স্ত্রী সাহিদা বেগম। তিনি জানান তার দুই ছেলে ইউসুফ ও আইয়ুবকে তার স্বামী রমজাননগর মৌজার ৬৯, ৮৪ এবং ২৩৬ নম্বর খতিয়ান থেকে ৯০ শতক জমি ১৯৯৪ সালের ২১ সেপ্টেম্বর ৩৯৬৪ নম্বর রেজিস্ট্রি দানপত্র মূলে হস্তান্তর করেন। এই জমিতে তারা সবাই দখল রয়েছেন। সাহিদা বেগম বলেন তার স্বামীর প্রথম স্ত্রীর ছেলে আবুল কাশেম জামায়াতের মাসিক চাঁদাদাতা এবং তার পুত্র জামায়াত নেতা ফজলুল করিম সরদার নারী নির্যাতন মামলার আসামী। আবুল কাশেমের নাশকতা ও বোমা মামলায় এবং একটি জিআর মামলার চার্জশীট হয়েছে। তিনি জানান তার পুত্র ইউসুফের স্ত্রী সাবিনা খাতুন সহ কয়েকজনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করলে তার পুত্র আইউব আলি সরদার আবুল কাসেম তার পুত্র ফজলুল করিম সহ তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে ১২১/২০১৫ মামলা করেন। এ মামলার চার্জশীট হয়েছে। এই মামলা থেকে বাঁচার জন্য আবুল কাসেম তার নিজের পাঁচিল ভাঙ্গা ও ডাকাতির মিথ্যা মামলা করে এবং সাক্ষী বানায় বাড়ি থেকে দুর সোবহান ও মোস্তফাকে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে দোষী কে বা কারা তা নির্নয় করতে পারেনি। পরে থানায় একটি জিডি এন্ট্রি করা হয়। কাশেম সরদার পুলিশ সুপারের কাছে দরখাস্ত করলে শ্যামনগর থানার এসআই রাজকিশোর পাল তদন্ত শেষে দেওয়া প্রতিবদন উল্লেখ করেন যে, সেখানে ডাকাতির ঘটনা সম্পূর্ন মিথ্যা। এই দুটি রিপোর্ট জনৈক হুমায়ুন কবিরের নামে এসেছে। তিনি রীট হুমায়ুন নামে পরিচিত। রীট হুমায়ুন ৯১৯৬/২০১৪ নম্বর রীট করে ভেটখালি সরকারি গোডাউনের জায়গা দখল করেছেন এবং কয়েকটি দোকান তৈরী করেছেন। বহু মামলার আসামী রীট হুমায়ুনের সহযোগিতায় আবুল কাশেমের পুত্র ফজলুল করিম মিথ্যা ঘটনা সম্পর্কে হাইকোর্ট ২৪৯০/২০১৯ নম্বর রীট দাখিল করে কোন রুল পাননি। এ নিয়ে পত্রপত্রিকায় রিপোর্ট হয়। এতে শ্যামনগর থানার ওসি ভীত হয়ে সাহিদা খাতুনের দুই পুত্র সহ টিআর ৮৪/১৬ নম্বর মামলার স্বাক্ষীদের বিরুদ্ধে গত ২ এপ্রিল পেনাল কোড ৩৯৫/৩৯৭ ধারার মামলা করেন। এ ব্যাপার পুলিশ জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিলে রীটকারী ফজলুল করিম রীট হুমায়ুনের পরামর্শে গত ৭ এপ্রিল তাদের রীট প্রত্যাহার করে নেন।  সাহিদা খাতুন আরও বলেন এসব বিষয় উল্লেখ করে গত ৮ এপ্রিল সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের নিকট তিনি আবেদন করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তদন্তের কোন রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে ২ এপ্রিল তারিখ ৩ নম্বর মামলার ১ নম্বর আসামী ইউসুফ সরদার ও ২ নম্বর আসামী আইয়ুব সরদার কথিত ঘটনার ১৫ ফেব্রুয়ারি তারিখে বাড়িতে ছিলো না। পাঁচিল ভাঙ্গা কিংবা মিথ্যা ডাকাতির সঙ্গে তারা জড়িত নয়। টিআর মামলার স্বাক্ষীদের ওই মামলার আসামী করা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি পরপর দুইবার তদন্ত করে ডাকাতির ঘটনা মিথ্যা বলে রিপোর্ট দিয়েছে। এমনকি রমজাননগর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ জন মেম্বর প্রত্যয়নপত্র প্রদান করে বলেছেন, কথিত ঘটনার তারিখ ৩৯৫/৩৯৭ ধারার কোন ঘটনা ঘটেনি। সাহিদা খাতুন তার সন্তানদের নামে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা সহ সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন। একই সাথে নাশকতা ও বোমা মামলার ফেরারী আসামী আবুল কাশেম ও তার পুত্র ফজলুল করিমের মিথ্যা মামলাটি তদন্ত করে ইউসুফ সরদার, আইয়ুব সরদার ও পুত্রবধূ সাবিনা খাতুনের অব্যাহতি দাবি করেছেন। তারা রীট হুমায়ুনের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সাহিদার সতীনপুত্র মোঃ নাজির সরদার ও পুত্রবধূ সাবিনা খাতুন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com