মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
অন্ন বস্ত্রের সমাধানের পর গৃহহীনদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা -তথ্যমন্ত্রী   বিত্ত কখনো রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা -তথ্যমন্ত্রী বাইডেনের শপথের সব আয়োজন সম্পন্ন, নজিরবিহীন নিরাপত্তা শিগগিরই ভ্যাকসিন বিতরণ কার্যক্রম শুরু : সংসদে প্রধানমন্ত্রী সিরাজগঞ্জে অবৈধ ৩টি ইটভাটায়  ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ লক্ষ টাকা জরিমানা নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি বেলকুচিতে আলোচিত পিতা-পুত্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আটক স্পেনে তীব্র তুষারপাতে জনজীবন অচল: যান চলাচল বন্ধ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা গ্রেফতার দোহারে অবৈধ ড্রেজার পাইপ ভেঙ্গে দিল প্রশাসন 

কলারোয়ায় তিন হত্যার অভিযোগের পাল্টা সংবাদ সম্মেলন

খবরের আলো :
শেখ আমিনুর হোসেন, সাতক্ষীরা ব্যুরো চীফ: কলারোয়ায় অবৈধভাবে সম্পত্তি দখল করতে না পেরে মিথ্যা হত্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানির চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পাঠ করেন কলারোয়ার খোর্দ্দ গ্রামের মৃত দুখু গাজী ছেলে মো. সবুর গাজী। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন ১৯৬৩ সালের দিক খোদ্দা মৌজায় ১০৩, এস এ খতিয়ান ২৭ ও ২৪ দাগ নম্বরে ১৯৪৮, ১৯৪৯ দাগ ৫৯ শতক সম্পত্তি মৃত মোহর আলীর কাছ থেকে আব্দুস সোবহান খা ক্রয় করেন। পরবর্তীতে সোবহান কোবলা দলিল মূলে আমাদের ৭ ভাই যথাক্রমে আবুল কাশেম, মীর কাশেম, বজলুর রহমান, ফজলুর রহমান, আব্দুস সবুর, আমজাদ আলী ও জামাল উদ্দিনের কাছে বিক্রয় করেন। সে বুনিয়াদে আমরা ৭ ভাই উক্ত সম্পত্তিতে শান্তি পূর্ণ ভাবে বসবাস করে আসছিলাম। কিন্তু মৃত. মোহর আলীর পোতা অর্থলোভী আনারুল ইসলাম অবৈধ লোভ ও লাভের বশবর্তী হয় তার দাদার বিক্রয় করা সম্পত্তি দখলের জন্য ভূূয়া রেকর্ডের কাগজপত্র তৈরি করে অবৈধভাবে উক্ত সম্পত্তি দখলের ষড়যন্র লিপ্ত হয়। এবিষয়ে কলারোয়া সহকারী জজ আদালত আনারুলসহ ৩৭ জনকে আসামী করে ৩১১/১১নং মামলা আনারুল দিংদের বিরুদ্ধে করি। উক্ত মামলায় আদালত গত ০১/৪/১৫ তারিখ আনারুল গং এর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন। কিন্তু আনারুল উক্ত আদেশ অমান্য করেন। উক্ত আদেশ অবমাননা করায় আনারুল ইসলাম দিং এর বিরুদ্ধে আবারো আদালতে মিস ১৩/১৮ নং আদালতে অবমাননার মামলা দায়ের করি। ওই সম্পত্তি দখল করতে না পেরে এবং তার বিরুদ্ধে মিস কেস মামলা দায়ের করায় আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে বিভিন্ন মিথ্যাচার করে যাচ্ছে সে। গত ২৫ এপ্রিল সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে আনারুল দাবি করছে তার পিতা জয়নুদ্দিন, চাচা আয়ন উদ্দিন ও আমার ভাই বজলুর রহমান আমাদের মারপিটে নিহত হয়েছেন। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আনারুলের পিতাকে আনারুল ও তার মাতা রহিমা ষড়যন্র করে হত্যা করেছে। তার পিতা জয়নুদ্দিন কে চিকিৎসার জন্য ভারত নিয়ে উঁচু স্থান থেকে ফেলে দেয় সে ও তার মা। এর কয়েক দিন পর জয়নুদ্দিন মারা যায়। আয়নউদ্দিন ক্যান্সার মারা গেছেন আর আমার ভাই বজলুর রহমান স্ট্রোকে মারা গেছেন। অথচ আনারুল তার  পিতা, চাচা এবং আমার ভাই বজলুকে হত্যা করা হয়েছে মর্মে প্রচার দিয়ে অবৈধ ফেয়দা লুটতে চায়। আমার ভাই পরিবারের সকল সদস্যের সামনেই স্ট্রোকে মারা গেছেন। তাকেও হত্যার প্রচার দিয়েছে আনারুল। সে একজন ডাকাত দলের সদস্য।
তিনি আরো বলেন জয়নউদ্দিন মারা গেছে প্রায় ২৪ বছর আর চাচা আয়নউদ্দিন মারা গেছে  ৫ বছর। এতবছর পর তিনি একবার ৩টি মৃত্যুর ঘটনাকে হত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে ভাই ফজলুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
আমি উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ জানাছি সাথে সাথে উক্ত ষড়যন্রকারী আনারুলের শাস্তির দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com