সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন

ফের সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে জঙ্গিরা

খবরের আলো :

 

 

মো:আমিন হোসাইন : আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ধারাবাহিক অভিযানে কোণঠাসা হয়ে পড়া জঙ্গিরা ফের মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে। গোপনে তারা অস্ত্র ও জনবল সংগ্রহ করে নতুনভাবে সংগঠিত হচ্ছে বলে ধারণা গোয়েন্দাদের। শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনার পর বাংলাদেশে হামলার আশঙ্কা অনেকাংশে বেড়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশেষ করে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) নিজস্ব টেলিগ্রাম চ্যানেলে এক বার্তায় ভারতের পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশকে টার্গেট করায় দেশে ঘাপটি মেরে থাকা জঙ্গিরা এতে উৎসাহিত ও আশকারা পেয়ে থাকতে পারে। যার প্রমাণ গতকাল সোমবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বসিলায় জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়ার ঘটনা। যদিও বসিলায় সংগঠিত হওয়া জঙ্গিদের নাশকতার পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বিশ্লেষকরা বলছেন, নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর বর্বোচিত রক্তাক্ত হামলার ঘটনার পর সারা বিশে^র জঙ্গিরা উত্তেজিত হয়ে উঠেছে। এরই ফলে শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় ৩টি গির্জা ও ৩টি হোটেলে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশে ঘাপটি মেরে থাকা জঙ্গিগোষ্ঠীও ফের সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে। গোপনে তারা সংগঠিত হয়ে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড চালাতে পারে। তবে জঙ্গিদের যে কোনো ধরনের অপতৎপরতা ঠেকাতে তৎপর রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন খবরের আলোকে বলেন, জঙ্গিরা একদিকে গ্রেপ্তার হচ্ছে, অন্যদিকে তৈরি হচ্ছে। সুতরাং জঙ্গি নেই বা কমে গেছে- এটা ভাবার কোনো কারণ নেই। সারা বিশে^র মতো বাংলাদেশেও জঙ্গি হামলার আশঙ্কা থেকেই যায়। অতএব, বরাবরের মতো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে শক্ত হাতে জঙ্গি দমন করে যেতে হবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বসিলার জঙ্গি আস্তানায় নিহতরা কোন সংগঠনের এবং তাদের সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য কী ছিল সেটা জানার পরে বোঝা যাবে কোনো জঙ্গি সংগঠন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে কিনা।

দেশে দুই মাস আগে জঙ্গিবাদের যে ঝুঁকি ছিল, শ্রীলঙ্কায় হামলার পর তা কিছুটা বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ও ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ডের ঘটনার পর উগ্রবাদীরা প্রতিশোধ নেবে- এ রকম চিন্তা আমরা বেশ কিছু লোকের মধ্যে দেখেছি। শ্রীলঙ্কার ঘটনার পর জঙ্গিরা আরো বেশি উত্তেজিত হয়েছে। ফলে ঝুঁকিটা আমাদের আগের চেয়ে আরো বেড়েছে। ফলে দুই মাস আগে আমাদের ঝুঁকির যে মাত্রা ছিল, তার থেকে এখন ঝুঁকির মাত্রা একটু বেশিই। তবে এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আমরা এটা নিয়ে কাজ করছি। কিছু হওয়ার মতো অবস্থায় এটা এখনো যায়নি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সাধারণ মানুষও যদি সতর্ক থাকেন তাহলে এ ধরনের ঘটনা আর ঘটবে না বলে মনে করেন তিনি।

নিউজিল্যান্ডের ঘটনার পর উগ্রপন্থিরা কিছুটা উত্তেজিত হয়েছে দাবি করে সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, নিউজিল্যান্ডের হামলার পর আমরা দেখেছি জঙ্গিবাদীদের পেছনে যে একটা শক্তি আছে তা কিন্তু পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়নি। কারণ হামলার চিন্তা করার লোকজন অনেক আছে। কিন্তু হামলা বাস্তবায়ন করার জন্য যে সক্ষমতা সেটা অনেক কমে গেছে। তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কা আমাদের খুব কাছের দেশ। ফলে সেখানে হামলার পর উগ্রবাদীরা আরো বেশি উত্তেজিত হয়েছে। যেহেতু তাদের ওপর প্রভাব ফেলেছে, সেহেতু তারা হামলা করার চিন্তা করতে পারে। আমাদের চিন্তায় সেটি আছে, আমরা নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছি।

সিটিটিসির কর্মকর্তারা বলছেন, জঙ্গি সংগঠনের কর্মকাণ্ড কখনই থেমে থাকে না। কোনো না কোনোভাবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে থাকে। বর্তমানে তারা বিভিন্ন উপায়ে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগের চেষ্টা করছে। পুরনো জেএমবি ও আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের পলাতক সদস্যদের কেউ কেউ দেশের বাইরে নানাভাবে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করলেও দেশের অভ্যন্তরে নব্য জেএমবির সক্রিয় হয়ে ওঠার সুনির্দিষ্ট তথ্য আমাদের কাছে নেই।

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম কমিশনার (ক্রাইম) শেখ নাজমুল আলম খবরের আলোকে বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে আমরা সব সময় চেষ্টা করি জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে রাখার। এরপরও জঙ্গিরা গোপনে তৎপর হওয়ার চেষ্টা করে থাকে। তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তাদের অপতৎপরতা নস্যাৎ করে দেয়। যার প্রমাণ সর্বশেষ বসিলার ঘটনা। সেখানে আস্তানা গড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। যেটা শ্রীলঙ্কা পারেনি বলেই সেখানে এত বড় ঘটনা ঘটে গেছে। আমাদের দেশে যাতে ওই ধরনের ঘটনা ঘটতে না পারে সে জন্য গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত আছে।

বসিলায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষে র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, হলি আর্টিজানের পর থেকেই আমরা নিয়মিত অভিযান চালিয়ে আসছি। প্রতি সপ্তাহেই আমরা জঙ্গি গ্রেপ্তার করছি। গত সপ্তাহে বরিশাল থেকে জঙ্গি গ্রেপ্তার করেছি। আমরা যত কাজই করি না কেন জঙ্গিদের থেকে দৃষ্টি ফেরাইনি। সর্বশেষ আমরা বসিলার আস্তানা খুঁজে পাই এবং অভিযান পরিচালনা করি। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com