মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে অবৈধ ৩টি ইটভাটায়  ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ লক্ষ টাকা জরিমানা নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি বেলকুচিতে আলোচিত পিতা-পুত্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আটক স্পেনে তীব্র তুষারপাতে জনজীবন অচল: যান চলাচল বন্ধ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা গ্রেফতার দোহারে অবৈধ ড্রেজার পাইপ ভেঙ্গে দিল প্রশাসন  সালমান এফ রহমানের দোহার – নবাবগঞ্জে উন্মুক্ত হলো ওয়াজ মাহফিল বদলগাছীর কোলা ইউনিয়ন কে মডেল ইউনিয়ন গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছেন চেয়ারম্যান স্বপন নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন রাজধানীর মিরপুরে নতুন বছর উদযাপনের বিশেষ আয়োজন

২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ

????????????????????????????????????

খবরের আলো রিপোটঃ

 

 

শনিবার, ঢাকার শ্যামলীতে অবস্থিত ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের হেলথ সেক্টরের প্রশিক্ষণ কক্ষে সকাল ১০টায় “ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার ও ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে করণীয় ”শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তরা বলেন, ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য শরীরের জন্য সরাসরি একশতভাগ ক্ষতিকর। তামাকের ক্ষতি হ্রাস করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ। মিডিয়া এক্ষেত্রে বিরাট ভ’মিকা পালন করতে পারে। তবে মাঠ পর্যায়ে মানুষের কাছে যেতে হবে এবং তাদেরকে বোঝাতে হবে। অন্যদিকে সরকারকেও সকল প্রকার তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। তাহলে ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করা সম্ভব। অনুষ্ঠানটি সভাপত্বিত করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের হেলথ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ন্যাশনাল ইন্সিটিউট অব ক্যান্সার রির্সাচ এন্ড হসপিটাল এর সহযোগী অধ্যাপক ডা: হাবিবুল্লাহ তালুকদার, জাতীয় তামাক বিরোধী প্লাট ফর্মের কো-অডিনেটর ডা: মাহফুজুর রহমান ভূঞাঁ, এস এ টেলিভিশনের এসাইনমেন্ট এডিটর এম এম বাদশা, তামাক বিরোধী নারী জোটের কো-অডিনেটর সৈয়দা সাঈদা আক্তার, গ্রাম বাংলা উন্নয়ন কমিটি পরিচালক খন্দকার রিয়াজ হোসেন, এইড ফাউন্ডেশনের আব্দুল কাদের রাজু সহ তামাক বিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিগণ ও স্বাস্থ্য সেক্টরের বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মীগণ। এ সভায় পাওয়ার পয়েন্ট প্রতিবেদন প্রদান করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন এর সহকারী পরিচালক ও তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের এর প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. মোখলেছুর রহমান ও তামাক বিরোধী নারী জোটের সমন্বয়কারী সাঈদা আক্তার।
৩৫.৩ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ (১৫ বছর ও তদুর্ধ্ব) তামাক ব্যবহার করে যার মধ্যে ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহারকারী ২ কোটি ২০ লক্ষ, পানের সাথে তামাক (জর্দা ও সাদাপাতা) মোট প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার মধ্যে ১৮.৭% (২ কোটি) (১৪.৩ % প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ও ২৩.০% প্রাপ্তবয়স্ক নারী), গুল ব্যবহারের ক্ষেত্রে মোট প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার মধ্যে ৩.৬% (৩৯ লক্ষ)(৩.১% প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ এবং ৪.১% প্রাপ্তবয়স্ক নারী), ঘড়হ-ঈড়সসঁহরপধনষব উরংবধংব জরংশ ঋধপঃড়ৎ ঝঁৎাবু, ইধহমষধফবংয ২০১০, তথ্যমতে প্রাপ্ত বয়স‹দের মধ্যে জর্দার চেয়ে সাদাপাতা ব্যবহারের হার দৈনিক ৭.১ গুন বেশি । ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার কমাতে বিভিন্ন উদ্দ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন। যেমন-
১. সাদাপাতা প্রস‘তকারক কোম্পানিগুলোকে রেজিষ্ট্রেশনের আওতায় আনা, বাজারজাতকরণে প্যাকেজিং এর ব্যবস্থা করা, এবং কর জালের মধ্যে নিয়ে আসা।
২. সরকার ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে সাদাপাতা তামাকজাত দ্রব্য হিসেবে উল্লেখ করে এর ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
৩. ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেটে আইন অনুযায়ী সর্ঠিক সচিত্র সর্তকবাণী মূদ্রনের ব্যবস’া করা এবং তা মনিটর করা।
৪. ট্যারিফ ভ্যালু প্রথা বিলুপ্ত করে সিগারেট ও বিড়ির ন্যায় ‘খুচরা মূল্যের’ ভিত্তিতে করারোপ করা;
৫. আইন অনুযায়ী, তামাকজাত দ্রব্য ১৮ বছরের কম কারো কাছে বিক্রি না করা;
৬. বর্তমানের আইনের সংশোধন পূর্বক সকল প্রকার তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহারের ওপর বিধি নিষেধ আরোপ করা।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com