সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বদলগাছীতে নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত  যশোর ডিবির পৃথক তিনটি সফল অভিযান অপহরণের এক সপ্তাহেও উদ্ধার হয়নি ফুলবাড়ীর কলেজ ছাত্রী নূপুর মহন্ত বাচ্চাদের তাড়াতে গিয়ে গুলি নিক্ষেপ করল মন্ত্রী পুত্র, জনতার হাতে গণধোলাই ফুলবাড়ীতে অর্ধশত এতিম শিশুর মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ আসামের নগাঁওয়ে পুলিশের এনকাউন্টার, তীব্র প্রতিক্রিয়া কাটলিছড়ায় শ্রীমন্দির ও শ্রীবিগ্রহ দ্বাদশতম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উৎসব উপলক্ষে অনলাইন সৎসঙ্গ অনুষ্ঠিত বরগুনার সাংসদ ও ওসির ফোনালাপ ভাইরাল সাতক্ষীরা আদালত চত্তরে অনলাইন প্রেসক্লাবের মাস্ক ও সাবান বিতরণ চুয়াডাঙ্গার জে.আর পরিবহনের সাথে মোটরসাইকেলের ধাক্কা; চালক পঙ্গুতে

ঝাঁজ সামলাও

আমাদের গৃহপরিচারিকার সঙ্গে আর পারা গেল না। সেদিনই এক কেজি পেঁয়াজ কিনেছি। দিন তিনেক যেতে না যেতেই রান্নাবেলায় তিনি বলেন, ‘পেঁয়াজ নাই।’

এ কেমন কথা! পইপই করে বলে দিয়েছি, ‘চাচি, রান্নায় পেঁয়াজ কম দেবেন।’

কে শোনে কার কথা। গৃহপরিচারিকার দীর্ঘদিনের অভ্যাস। পেঁয়াজ কম দিলে তাঁর রান্না জমে না। মনে হয়, কী যেন কম হয়ে গেছে। হাত নিশপিশ করে। একটু বেশি পেঁয়াজ দিয়ে মনের খচখচানি দূর করেন তিনি।

খবরটা গৃহপরিচারিকাও জানেন—পেঁয়াজের বাজারে আগুন। রান্না শুরুর আগে ‘পেঁয়াজ কম দেবেন, আমরা পেঁয়াজ কম খাই’ বলে নির্দেশনা দিতেই তিনি চোখ-মুখ কুঁচকে বলেন, ‘আইজকাল পেঁয়াজ খাওনেরও উপায় নাই, যা দাম বাড়ছে! বাজারের টেকা পেঁয়াজেই শ্যাষ।’

কথার সঙ্গে একমত পোষণ করে ‘হুম’ বলতেই সুযোগ পেয়ে যান গৃহপরিচারিকা। অন্য যেসব বাসায় তিনি কাজ করেন, সেখানে ইদানীং পেঁয়াজ নিয়ে কী সব কাণ্ড ঘটছে, তার ফিরিস্তি দিতে শুরু করেন। অনুযোগের সুরে বলেন, ‘এক আপা কইছে, পেঁয়াজ বেশি দিলে আর কাজে রাখবে না। অহন একটা বড় পেঁয়াজ দিয়া দুই পদ রান্ধি। মজাগজা কিছুই হয় না। আইজকাল পেঁয়াজ নিয়াও কিপটামি করে।’

২.
ভাড়া বাসার নিচতলায় তত্ত্বাবধায়ক ও গাড়িচালক থাকেন। তাঁদের মধ্যে সাপে-নেউলে সম্পর্ক। দুজন একসঙ্গে থাকলেও পাক আলাদা। গতকাল দুজন তুমুল বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ান। বাগ্‌বিতণ্ডা উপভোগ করতে সোৎসাহে ঘটনাস্থলে যান আমার সহকারী। ঘণ্টা খানেক পর ফিরে এসে সহকারী জানাল, নিরাপত্তাকর্মী ও গাড়িচালকের মধ্যকার বাগ্‌বিতণ্ডার কারণ পেঁয়াজ।

গাড়িচালক সন্ধ্যায় চড়া দামে আধা কেজি পেঁয়াজ কিনেছেন। রান্নাঘরের লকারে সযত্নে সেই পেঁয়াজ রেখেছেন। রাত নয়টার পর রান্না বসাতে গিয়ে পেঁয়াজ পাচ্ছেন না।

গাড়িচালকের অভিযোগ, তত্ত্বাবধায়ক লোক সুবিধার না। এর-ওর বাজার থেকে মেরে দেওয়ার স্বভাব আছে তাঁর। দুর্মূল্যের এই বাজারে পেঁয়াজও মেরে দিয়েছে সে।

পেঁয়াজ চুরির মতো ‘গুরুতর’ অভিযোগ শুনে তত্ত্বাবধায়ক রেগে ফায়ার। ভাগ্যের ফেরায় আজ তত্ত্বাবধায়ক তিনি। তাই বলে পেঁয়াজ চুরি!

গাড়িচালক তক্কে তক্কে আছেন। তত্ত্বাবধায়কের রান্নার সময় আড়ালে-আবডালে রান্নাঘরের দিকে উঁকি মারছেন। তাঁর বিশ্বাস, পেঁয়াজ-চোর (তত্ত্বাবধায়ক) ধরা পড়বেই। কারণ, এই পেঁয়াজ তাঁর কষ্টের টাকায় কেনা।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com