মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
এক দিনের জন্য ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়ল রোজায় করোনা সংক্রমণ বাড়ার প্রমাণ পাওয়া যায়নি: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে: রেলমন্ত্রী সর্বাত্মক লকডাউনের আগে যেভাবে ঢাকা ছাড়ছেন হাজারো মানুষ আ.লীগ নেতার বাড়িতে ব্যবসায়ীর লাশ, এসপি অফিস ঘেরাও রাজৈরে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ দৌলতপুরে লকডাউন কার্যকর করতে মাঠে নেমেছে প্রশাসন জাতীয় গনমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্মীকৃতির দাবীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে শ্রীপুরে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে ইউপি সদস্য কর্তৃক সাংবাদিকের উপর হামলা বাবরকে দেখে শিখুক কোহলি!

নারায়ণগঞ্জে ভয়ঙ্কর ডেঙ্গু, অসহায় ইউনিয়নবাসী

খবরের আলো :

 

 

স্টাফ রিপোর্টার নারায়ণগঞ্জ : সিটি করপোরেশন পৌরসভায় মশা মারতে বরাদ্দ থাকলেও ইউনিয়নের বেলায় তা নেই। আর এ জন্য ইউনিয়নভুক্ত এলাকাগুলোতে মশক নিধনে কোন উদ্যোগ নেয়া হয় না। এ নিয়ে অন্য সময় তেমন আলোচনা না হলেও সম্প্রতি ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ায় চিন্তিত সাধারণ মানুষ। ইতিমধ্যে বক্তাবলী ইউনিয়নে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে এক যুবক। প্রশ্ন উঠেছে, সিটি-পৌরসভায় বরাদ্দ থাকতে পারলে ইউনিয়নে কেন নেই।
ফতুল্লার বক্তাবলীর ছমিরনগর এলাকায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে জসিম উদ্দিনের ছেলে শান্ত নামের এক যুবক রোববার মারা গেছেন। শান্ত কোরিয়ার যাওয়ার জন্য ইপিএস লটারী পেয়েছিলেন। এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শওকত আলীর সাথে মোবাইল ফোনে কথা হয় দৈনিকখবরের আলো সাংবাদিক কে। তিনি জানান, মশক নিধনের জন্য ইতিমধ্যেই অল্প কিছু স্প্রে মেশিন ও ঔষধ আনানো হয়েছে। কেউ যদি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয় সেক্ষেত্রে আমরা তাদের চিকিৎস্যর ব্যয় বহন করবো। তিনি দাবি করেন, আমরা খোজঁ নিচ্ছি কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে কি না।

সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়র পরিষদের সচিব মো. আবু হানিফা জানান, মশক নিধনের জন্য সরকার থেকে কোন বরাদ্দ দেয়া হয় না। এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আসাদুজ্জামান বলেন, মশক নিধনে আমার ইউনিয়নে নিজস্ব অর্থায়নে স্প্রে মেশিন, ঔষধসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আমরা এনেছি। সরকার থেকে বরাদ্দ দেয়া হয়নি তবে, এ বিষয়ে আমাদের মিটিং হবে। কিভাবে মশক নিধন করা যায় সে বিষয়ে দিক নির্দেশনা সেই সাথে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেয়া হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে আশা করি খুব শীঘ্রই আমরা মশক নিধন করতে পারবো।

আড়াইহাজারের ব্রাহ্মনদী ইউনিয়নের সচিব রেজাউল করিম জানান, মশক নিধনে সরকার থেকে ইউনিয়নে কোন বরাদ্দ দেয়া হয় না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গেলে এর দায়ভার কে নেবে তা আমার জানা নেই।

বন্দরের ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মো. হাসান বলেন, ইউনিয়নে মশক নিধনের জন্য কোন বরাদ্দ দেয়া হয়নি। তবে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করছি। ইউনিয়ন পরিষদে মশক থাকে কি না বা কেউ যদি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় তাহলে এর দায়ভার নেবে কে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের যে দায়িত্ব আমরা তা যথাযথভাবে পালন করছি। মশক নিধনের জন্য আমাদের কাছে কোন স্প্রে মেশিন কিংবা ঔষধ দেয়া হয়নি।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন জানান, মশক নিধনে ইউনিয়নগুলোতে সরকার থেকে কোন বরাদ্দ দেয়া হয় না। তবে ইউনিয়ন পরিষদ চাইলে উপজেলা থেকে বরাদ্দ নিতে পারে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com