মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০২:০০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
এক দিনের জন্য ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়ল রোজায় করোনা সংক্রমণ বাড়ার প্রমাণ পাওয়া যায়নি: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে: রেলমন্ত্রী সর্বাত্মক লকডাউনের আগে যেভাবে ঢাকা ছাড়ছেন হাজারো মানুষ আ.লীগ নেতার বাড়িতে ব্যবসায়ীর লাশ, এসপি অফিস ঘেরাও রাজৈরে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ দৌলতপুরে লকডাউন কার্যকর করতে মাঠে নেমেছে প্রশাসন জাতীয় গনমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্মীকৃতির দাবীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে শ্রীপুরে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে ইউপি সদস্য কর্তৃক সাংবাদিকের উপর হামলা বাবরকে দেখে শিখুক কোহলি!

শ্রীপুরে মাদ্রাসা সভাপতিসহ ৪জনকে পিটিয়ে আহত

খবরের আলো :

শ্রীপুর (গাজীপুর )প্রতিনিধি:গাজীপুরের শ্রীপুরে কিছু ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা হাতে হাতে লাঠি আর হকিস্টিক নিয়ে মাদ্রাসার সভাপতি সহ ৪ জনকে পিটিয়ে আহত করেছে । কিছু বুঝে ওঠার আগেই পেছন দিক থেকে সন্ত্রাসীরা প্রতিপক্ষের লোকজনকে মারধর শুরু করে। এক পর্যায়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে চারজন। পরে দেশি অস্ত্র হাতে নিয়ে সন্ত্রাসীরা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। রোববার শ্রীপুর উপজেলা কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে এ ঘটনা ঘটেছে। আহতদের চিকিৎসার জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিয়ম অনুযায়ী  সভাপতি নির্বাচন করার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা টেপির বাড়ি হাজী আবদুল ওহাব দাখিল মাদ্রাসার অভিভাবক সদস্য, দাতা ও শিক্ষক প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানান। পূর্বঘোষিত তারিখ অনুযায়ী রোববার মাদ্রাসা পরিচালনা পরিষদের বর্তমান সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন মায়া তার লোকজন নিয়ে শিক্ষা অফিসে যেতে থাকেন। উপজেলা কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে যাওয়া মাত্রই মোফাজ্জলের পেছন দিকে থেকে অতর্কিত হামলা করে সন্ত্রাসীরা। লাঠি ও হকিস্টিক দিয়ে মোফাজ্জল, হুমায়ূন কবীর, মাহবুব হাসান ইমন ও মুসলেম উদ্দিনকে পিটিয়ে মাটিতে ফেলে রাখে। কয়েকটি মোটরসাইকেলে ভাংচুর চালায় সন্ত্রাসীরা। এদিকে মাদ্রাসার সুপার আবুল মনসুরকে উপজেলায় আটকে রাখে তাদেরই একটি দল। এ ঘটনায় রোববার মোফাজ্জল হোসেন মায়া টেপির বাড়ি গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে আবুল হোসেন রিপনকে অভিযুক্ত করে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মাদ্রাসার সুপার আবুল মনসুর জানান, রোববারই সভাপতি নির্বাচিত করার শেষ দিন ছিল। এখন আর এ প্রক্রিয়ায় সভাপতি নির্বাচিত করার সুযোগ নেই। বাধ্য হয়ে অ্যাডহক কমিটি গঠন করতে হবে। আর এ অ্যাডহক কমিটির সভাপতি হওয়ার জন্যই রিপন এ হামলা চালিয়েছে। তাকে লাঞ্ছিতও করা হয়েছে। অভিযুক্ত আবুল হোসেন রিপন বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এ সময় তিনি সেখানে ছিলেন না। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, সভাপতি নির্বাচিত করার জন্য বিধিমতো ওই মাদ্রাসার সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। ওসি (অপারেশন) আক্তার হোসেন বলেন, পুলিশ উপস্থিত হওয়ার পরপরই উচ্ছৃঙ্খল যুবকরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com