সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মাধবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান গাজীপুরে পোশাক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার ত্রিশালে রাস্তার দূর্ভোগে লালপুর-কৈতরবাড়ী ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা হলে অপরাধীদের মধ্যে ভীতিও থাকবে: কাদের ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাহাড়পুর একিয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিনব কায়দায় রোগীর সাথে প্রতারণা নবাবগঞ্জে অজ্ঞাত পরিচয় নারীর লাশ উদ্ধার মাধবপুরে করোনার ভাইরাসের সুযোগে বালু খেকোদের রমরমা ব্যবসা নৌকায় ভোট দেয়ার অপরাধে বিএনপি দলগতভাবেই এইসব অপকর্ম করেছিল -তথ্যমন্ত্রী বড়াইগ্রামে জোর পুর্বক ঘরবাড়ি ভাংচুর করে রাস্তা নির্মাণ

নেত্রকোনার বিজয়পুরের বসতবাড়ী-জীবন হুমকির মুখে

খবরের আলো  :

 

 

কৃষ্ণ কুমার শুভ, নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনা জেলার সীমান্তে গারো পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত দূর্গাপুর উপজেলা। এটি সোমেশ্বরী নদীর তীরে আদিবাসী নৃ-গোষ্টীর এলাকা বলে পরিচিত। পাহাড় ঘেরা নদীবিধৌত এলাকাটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও সম্পদে পরিপূর্ণ। গারো, হাজং, কোচ, বানাই, হদি, ভালু, রাজবংশী আদিবাসী ও বাঙালিদের সহবস্থান এখানকার জীবন-যাপনকে করেছে বৈচিত্র্যপূর্ণ। বিজয়পুরের পাহাড়, টিলা ও সমতল ভূমিতে আছে বিপুল পরিমাণ সাদামাটি। যাকে এলাকার লোকেরা ‘সাদা সোনা’ বলে থাকেন। এ সাদামাটি বিভিন্ন কোম্পানী বছরের পর বছর ধরে নির্বিচারে উত্তোলন করে কোটি কোটি টাকা উপার্জন করছে। সাদা সোনা উত্তোলনে আদিবাসীরা হারিয়েছে বসতবাড়ী, খনিগর্ভে প্রাণ দিয়েছে ৮ জন। বঞ্চিত হচ্ছে বিজয়পুরবাসী তাদের নিজ এলাকার অমূল্য খনিজ সম্পদ থেকে। কিন্তু আদিবাসীদের এরূপ মৃত্যু আজ পর্যন্ত থানায় একটি হত্যা মামলাও দায়ের করা হয়নি। তবে কয়েকমাস যাবৎ সাদামাটি উত্তোলন বন্ধ রয়েছে।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, বিজয়পুরে শতাব্দী ধরে আদিবাসীরা বাস করে আসছে। আইন অমান্য করে কোম্পানীগুলো অবাধে সাদামাটি উত্তোলনের ফলে অনেক আদিবাসী পরিবার হারিয়েছে তাদের বসতবাড়ি। খনির তলদেশে শিশুসহ প্রাণ দিয়েছে এ পর্যন্ত ৮ জন। আদিবাসী রঞ্জিত ক্ষত্রিয়ের তথ্য মতে, নিহতরা হচ্ছেন- ছনগড়া গ্রামের রামকুমার দেবর্ষির ছেলে রিত হাজং, গাইমারা গ্রামের ধেরীজ রেসার ছেলে লফজ রিসিল, গুচ্ছগ্রামের বীরেশ স্নালের ছেলে জুয়েল তজু, গাইসারা গ্রামের দানিয়েল রেমার ছেলে দিগন্ত স্নাল ও মাইজপাড়া গ্রামের বেনেডিক্ট রাখালের ছেলে দিলীপ মানকিন সহ এলাকার অজ্ঞাত আরো তিন জন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, অপরিকল্পিতভাবে মাটি উত্তোলন করার ফলে কামারখালি বাজার থেকে চারুয়ারপাড়া সড়ক ভেঙ্গে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। মাটি উত্তোলনকারী এসব কোম্পানী মাটি উত্তোলনে খনি এলাকার সরকারি আইন অমান্য করছে। এজন্য কোটি কোটি টাকা মূল্যের মাটির অপচয় হচ্ছে, ব্যবহারও সুষ্টুভাবে হচ্ছে না। দিন দিন বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছে এলাকার জীবনযাত্রা ও পরিবেশ। বিপুল পরিমান অর্থের রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার।

দূর্গাপূরের ব্যবসায়ী হেমেন্দ্র জানান, দূর্গাপুরের সাদা মাটি অর্থাৎ সাদা সোনা উত্তোলন করে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সাদা মাটি পাওয়া যাচ্ছে নেত্রকোনা বিজয়পুরে। অথচ আজ পর্যন্ত স্থানীয়ভাবে সেখানে গড়ে উঠেনি মৃত্তিকা ভিত্তিক কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান। যেখানে হতে পারতো শত শত লোকের কর্মসংস্থান। বিজয়পুর হতো শিল্পোন্নত একটি বাণিজ্যিক এলাকা।

দূর্গাপুর উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান সাইদুল হোসেন আকুঞ্জি এ ব্যাপারে জানান, ইতোমধ্যে দূর্গাপুরে আইন অমান্য করে সাদা মাটি উত্তোলন সহ উপজাতীদের প্রাণহানি ও বসতবাড়ি ভেঙ্গে পড়ার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে লিখিত ভাবে অবহিত করা হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com