রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০১:৩৫ অপরাহ্ন

নেত্রকোনার পূর্বধলায় স্বেচ্ছায় রক্তদান

খবরের আলো :

 

 

কৃষ্ণ কুমার শুভ, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি: নেত্রকোনায় মানবীয় দৃষ্টিকোণ থেকে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের স্বরূপ ‘স্বেচ্ছায় রক্তদান’। প্রয়োজনের সময় রক্ত পাওয়া এবং দূষিত রক্তের অভিশাপ থেকে মুমূর্ষু মানুষকে রক্ষা করার জন্যই প্রয়োজন নিরাপদ রক্তের। আর্থিক মূল্য দিয়ে এ দানের হিসাব কষা যায় না। এর সঙ্গে সম্পর্ক জীবনের। একান্তই মানবিক গুণ এটি। ভালোবেসে মানুষের জন্য যতগুলো কাজ করা যায় তার মধ্যে একটি স্বেচ্ছায় রক্তদান। দিন দিন স্বেচ্ছায় রক্তদাতার সংখ্যা বাড়ছে। বিশুদ্ধ রক্ত যেমন মানুষের জীবন বাঁচায়, তেমনি দূষিত রক্ত কেড়ে নেয় প্রাণ। জীবন বাঁচানোর গুরুত্বপূর্ণ এ উপকরণটি যেমন সব মানুষ দিতে পারে না, তেমনি সব স্থান থেকে এটি সংগ্রহ করা যায় না কিংবা উচিতও নয়।
নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলায় কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক রক্তদানে উদ্বুদ্ধ করতে গঠন করেছেন রক্তমিতা ফোরাম নামে স্বেচ্ছায় রক্তদান সংগঠন। কথা হয় স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে। কেউ ব্যবসায়ী, কেউ চাকুরিজীবি, কেউ শিক্ষক, কেউ সাংবাদিক, কেউ খেলোয়াড় ও কেউ ছাত্র। কাজের ফাঁকে যখনই সময় পান মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেন রক্তদানে। এ কাজটি করে মানসিকভাবে ভীষণ আনন্দ আর তৃপ্তি পান তারা। স্বেচ্ছাসেবকরা জানান, কখনো নেত্রকোনা, কখনো ময়মনসিংহে ক্যাম্পের আয়োজন করে যাচ্ছেন। তারা জানান, ঈদ-পার্বণের ছুটি বা কোনো বিশেষ দিনক্ষণ নয়, মুমূর্ষু রোগী কিংবা নিয়মিত থ্যালাসেমিয়া রোগীর তো রক্তের ঠিকই প্রয়োজন। তাদের চাহিদা মেটাতেই আমরা স্বেচ্ছায় রক্তদানে সবসময়ই মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছি।
জানা যায়, রক্তমিতা ফোরাম স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রম চেষ্টা করে যাচ্ছে ময়মনসিংহ বিভাগের রক্ত চাহিদার লক্ষ্য পূরণের জন্য। দেশের নিয়মিত রক্তের চাহিদা মেটানোর সঙ্গে সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহের যে কোনো দুর্যোগ বা জরুরি প্রয়োজনে নিরবচ্ছিন্ন সেবা দিতে চাই তারা।
বাংলাদেশ এখনও স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রমে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে পারিনি। বাংলাদেশে প্রতি বছর এখনো প্রায় ৮ লাখ ব্যাগ রক্তের প্রয়োজন। এর মধ্যে ৩০-৩৫ শতাংশ রক্ত আসে স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের কাছ থেকে, ৫৫-৬০ শতাংশ আসে রোগীর আত্মীয়-পরিজন-বন্ধু বান্ধবদের কাছ থেকে এবং বাকি রক্ত আসে অসাধু পেশাদার রক্ত বিক্রেতাদের কাছ থেকে। আর এই অসাধু পেশাদার রক্ত বিক্রেতাদের অধিকাংশই রক্তবাহিত বিভিন্ন রোগ বিশেষত, হেপাটাইটিস বি, হেপাটাইটিস সি, সিফিলিস, ম্যালেরিয়া এমনকি এইডস-এ আক্রান্ত। ফলে এই দূষিত রক্ত গ্রহণ করে রক্তগ্রহীতাও আক্রান্তহন দুরারোগ্য ব্যাধিতে; যা মোটেও কাঙ্খিত নয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com