শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৬:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মাধবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান গাজীপুরে পোশাক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার ত্রিশালে রাস্তার দূর্ভোগে লালপুর-কৈতরবাড়ী ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা হলে অপরাধীদের মধ্যে ভীতিও থাকবে: কাদের ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাহাড়পুর একিয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিনব কায়দায় রোগীর সাথে প্রতারণা নবাবগঞ্জে অজ্ঞাত পরিচয় নারীর লাশ উদ্ধার মাধবপুরে করোনার ভাইরাসের সুযোগে বালু খেকোদের রমরমা ব্যবসা নৌকায় ভোট দেয়ার অপরাধে বিএনপি দলগতভাবেই এইসব অপকর্ম করেছিল -তথ্যমন্ত্রী বড়াইগ্রামে জোর পুর্বক ঘরবাড়ি ভাংচুর করে রাস্তা নির্মাণ

পাগলকে হেরোইন ব্যবসায়ী সাজালো পুলিশ!

মঙ্গলবার, ০৩ মার্চ :প্রায় ৫ বছর ধরে মানসিক সমস্যায় ভুগছেন গোলাম মর্তুজা (২৯)। গত ছয় মাস ধরে বদ্ধ উন্মাদ তিনি। নাওয়া-খাওয়া, পোশাক-পরিচ্ছদ ঠিক নেই। ঘরে ফেরারও তাড়া নেই তার। তাকে হেরোইন বিক্রেতা সাজিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানা পুলিশ।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি আদালতের মাধ্যমে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। ওই দিনই ভোর সাড়ে ৬টার দিকে নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড় যাত্রীছাউনি থেকে এই পাগলকে গ্রেফতার করে টহল পুলিশের একটি দল। পুলিশের ওই টহল দলটির নেতৃত্বে ছিলেন থানার উপপরিদর্শক (নিরস্ত্র) মাসুদ রানা।

জানা গেছে, ২০১১ সালে ২২ অক্টোবর নগরীর লক্ষ্মীপুর ঝাউতলা এলাকার এক চিৎিসককে চিম্মি করে এক লাখ টাকা দায়ের ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছিলেন এসআই মাসুদ রানাসহ আট পুলিশ সদস্য। পরে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। প্রত্যেকেই সাময়ির বরখাস্ত ছিলেন দীর্ঘদিন। অভিযোগ রয়েছে-ওই চিকিৎসককে ম্যানেজ করে অভিযোগ থেকে মুক্তিপান তারা।

বিষয়টি স্বীকারও করেছেন এসআই মাসুদ রানা। তার দাবি, তিনি ওই কাণ্ডে যুক্ত ছিলেন না। অন্যদের কারণে তিনি ফেঁসে গিয়েছিলেন। পরে চিকিৎসক তাকে চিনতে না পারায় দায় থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তবে এই পাগল গ্রেফতারে তার কোন উদ্দেশ্য নেই বলে দাবি করেন।

এসআই মাসুদ রানার ভাষ্য, গোলাম মর্তুজার লুঙ্গির ডান কোচ হতে এক লাখ ১০ হাজার টাকা মূল্যের ১১ গ্রাম হেরোইন পাওয়া গেছে। উপস্থিত লোকজনের সামনেই তা উদ্ধার করে পুলিশ। তাদের সামনেই সাথে থাকা ডিজিটাল মেশিনে জব্দকৃত মাদক পরিমাপ করা হয়। ঘটনাস্থলেই জব্দ তালিকায় সাক্ষর করেন তিনিসহ দুই সাক্ষি।

এই ঘটনায় ওই দিনই রাজপাড়া থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দয়ের করেন মাসুদ রানা। মামলায় সাক্ষি করা হয় নগরীর আলীগঞ্জ মধ্যপাড়া এলাকার আসলাম আলীর ছেলে রাহাদুজ্জামান (২৩) ও লক্ষ্মীপুর বাকির মোড়ের আয়নাল ইসলামের ছেলে সুমন (৩১)।

লক্ষ্মীপুর মোড়ের পুলিশের বক্সের পাশেই পান-সিগ্যারেটের দোকান রয়েছে রাহাদুজ্জামান ও সুমনের। এদের মধ্যে রাহাদুজ্জামান রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের দৈনিক হাজিরা ভিত্তিক ইলেট্রিশিয়ান। সকাল ৯টার আগে তারা দোকান খোলেননা। ওই দিন এতো সকালে সেখানে তারা কি করছিলেন এনিয়ে প্রশ্ন তোলেন কেউ কেউ।

সাক্ষি সুমনের কাছে সেদিনের ঘটনা জানতে চাইলে তিনি জরুরী কাজের কথা বলে পাশের পুলিশ বক্সে চলে যান। মিনিট পাঁচেক পর সেখান থেকে বেরিয়ে এসে বলেন, পুলিশকে ওই ব্যক্তিকে তিনি ধরে নিয়ে যেতে দেখেছেন। নিয়ে যাবার সময় ওই ব্যক্তিকে তার পাগল মনে হয়েছিলো। তিনি ওই ব্যক্তির কাছ থেকে মাদক উদ্ধার করতেও দেখেননি। পরে ওই দিন সন্ধ্যায় এসআই মাসুদ রানা এসে তার নাম ঠিকানা নিয়ে যান।

একই ভাষ্য মামলার অপর সাক্ষি রাহাদুজ্জামানেরও। তিনি যোগ করেন, পুলিশের কথামত তারা সাক্ষি হয়েছেন। পুলিশ কিভাবে এজাহার সাজিয়েছে সেটিও তারা জানেননা।

গ্রেফতার গোলাম মর্তুজা নগর পুলিশের কর্ণহার থানার ধর্মহাটা মালিগাছা এলাকার মোক্তার হোসেনের ছেলে। কর্ণহার থানায় নিয়ে তার বিরুদ্ধে মাদকাসক্তি কিংবা মাদক ব্যবসা সংক্রান্ত কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। উন্মাদ এই যুকককে মাদক ব্যবসায়ী সাজানোয় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।

গ্রামের মুদি ব্যবসায়ী তাজরুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরেই তিনি পাগল। এদিক-সেদিক ঘুরে বেড়ান। তার দোকানে এসে কেক-কলা-বিস্কুট যা ইচ্ছে নিয়ে যান। হাত থেকে সিগ্যারেটের অবশিষ্ট অংশ টান দিয়ে নিয়ে যান। ডাকলে ঘুরেও তাকাননা। তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায় জড়ানোর অভিযোগ ভিত্তিহীন।

গোলাম মর্তুজার বাড়ির পাশেই পবা উপজেলার হুজরিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্য তুরজেমা বেগমের বাবার বাড়ি। তিনি বলেন, ছেলে পাগল দীর্ঘদিন ধরেই। ছেলের চিন্তায় তার মাও পাগল হয়ে গেছেন। মা-ছেলের চিকিৎসা করাতে গিয়ে সর্বশান্ত হয়েছে পুরো পরিবার। গোলাম মর্তুজা নন বরং কারা এলাকায় মাদক বিক্রেতা বা সেবনকারী আমরা জানি। সেটি পুলিশও জানে।

হুজরিপাড়া ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য গোলাম মুজাহিদ অভিযুক্ত গোলাম মর্তুজার শিক্ষক। তিনি বলেন, আমি তার পরিবারকে ব্যক্তিগতভাবে চিনি। দীর্ঘদিন ধরেই গোলাম মর্তুজা পাগল। প্রায় সময় ভারসাম্যহীন অবস্থায় থাকে। বাবা-মা যত্নে রাখলে বাড়িতে থাকে, তা না হলে বেরিয়ে পড়েন। তিনি কিভাবে হেরোইন পেলেন? প্রশ্ন তোলেন এই জনপ্রতিনিধি।

এনিয়ে পুলিশের ভূমিকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা। তিনি বলেন, মানসিক বিকারগ্রস্থ ওই যুবক। যার কারণে তিনি কাউকে না জানিয়ে বাড়ি থেকে চলে গেছেন। পুলিশের উচিৎ ছিলো, তাকে গ্রেফতার দেখানোর আগে ভালোভাবে যাচাই করা।

কিন্তু পুলিশ সেটি না করে উদ্দেশ্যমুলকভাবে ফাঁসিয়েছে। প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে তিনি পুলিশকে সহযোগীতা করবেন। কিন্তু নিরাপরাধ কাউকে পুলিশ ফাঁসাবে তা মেনে নেবেননা। তাকে ছাড়িয়ে আনতে তিনিও চেষ্টা চালাচ্ছেন।

তিন ভাইয়ের মধ্যে গোলাম মর্তুজা মেজো। বড়ভাই লুৎফর রহমান লিটন চার্জার রিকশা চালন। ছোটভাই আবু রায়হান কুরআনের হাফেজ। তিনি নগরীর একটি মাদ্রাসার শিক্ষক। একমাত্র বোন মেলিজা খাতুনের বিয়ে হয়ে গেছে।

গোলাম মর্তুজার বাড়িতে গিয়ে পাওয়া গেলোনা কোন পুরষ সদস্যকে। নারীরা জানালেন বাড়ির পুরষরা গেছেন গোলাম মর্তুজার সাথে কারাগারে দেখা করতে। সেখানে কথা হয় গোলাম মর্তুজার মা অজুফা বেগমের সাথে। কথাবার্তায় ফুটে উঠলো তার মানসিক অবস্থা। ওই অবস্থায় ছেলেকে ছাড়িয়ে আনার আকুতি জানালেন তিনি।

সাক্ষাত শেষে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বেরিয়ে কথা হয় গোলাম মর্তুজার বড়ভাই লুৎফর রহমানের সাথে। তিনি বলেন, বাবা দীর্ঘদিন ধরেই হৃদরোগী। চারবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ছিলেন।

এরই মাঝে মেজোভাই পাগল হয়ে যায়। ভাইয়ের চিন্তায় মানসিক ভারসাম্য হারান মা। মা ও ভাইয়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে কৃষক বাবা নিচের চিকিৎসা করাতে পারেননি। এই ঘটনায় বাকরুদ্ধ তার বাবা। এখন কথা বলতে পারছেননা। প্রায়ই অসুুস্থ হয়ে পড়ছেন। তিনি এই ঘটনায় ন্যায় বিচার চান।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের যমুনা সেল-১ এর বন্দি গোলাম মর্তুজা। সেখানে গিয়েও থামেনি তার পাগলামী। কারারক্ষিরা নাম প্রকাশ না করে জানিয়েছেন, কয়েক দিন ধরেই তিনি সময়মত খাবার নেননি। আবার যখন খাবার চেয়েছেন তখন পাননি। এমনকি স্বজনরা দেখা করতে গিয়েও তাকে সাড়া দেননি। চার ঘন্টা কারাগারজুড়ে তল্লাশি করে তাকে বের করে আনা হয়। কিন্তু কারো সাথে কথা বলেননি তিনি।

এবিষয়ে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার গিয়াস উদ্দিন বলেন, তিনি যে পাগল তা তারা কারাগারকে জানানো হয়নি। ফলে সাধারণ বন্দিদের মতই সুবিধা পাচ্ছিলেন তিনি। বিয়ষটি জানার পর তার চিকিৎসাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে কারা কর্তৃপক্ষ।

মামলার তদন্তভার পেয়েছেন নগরীর রাজপাড়া থানার উপপরিদর্শক তসলিমা খাতুন। তার এক আত্মীয়র বাড়ি ধর্মহাটা এলাকায়। মামলার নথিপত্র পেয়ে তিনি ফোন করে সেই আত্মীয়র মাধ্যমে আসামীর ঠিকানা যাচাই করেছেন। কিন্তু তার মানসিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারেননি। মামলা তদন্তকালে এমন কিছু পেলে প্রতিবেদনে সেটিই তিনি উল্লেখ করবেন।

সাক্ষ্য সংক্রান্ত কাজে থানার বাইরে আছেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন। এবিষয়ে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদি হাসান বলেন, মাদকাসক্তি থেকে অনেকেই ভারসাম্যহীন হয়ে যান। এমনটি তার ক্ষেত্রেও হয়ে থাকতে পারে। অভিযানে তার কাছ থেকে মাদক পাওয়া গেছে। ফলে বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ।

জানতে চাইলে নগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, এফআইয়ার অনুযায়ী, তার অধিকারে মাদক পেয়ে অপারেশন টিম মামলা দায়ের করেছে। পাগললকে গ্রেফতারে পুলিশের কোন উদ্দেশ্য থাকতে পারেনা। উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে পাগল গ্রেফতার করলে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি যোগ করেন, অনেকেই পাগল ছদ্ববেশ ধরে মাদক ব্যবসা করেন। আবার তাকে পাগল পেয়ে কেউ এই কাজে ব্যবহার করতে পারেন। আবার তাকে ফাঁসিয়ে দেয়ার চেষ্টা হতে পারবে। এটি প্রমাণ সাপেক্ষ বিষয়। তাছাড়া আদালতে পাগলের প্রমাণাদি উপস্থান করলে তিনি আইনী সহায়তা পাবেন।সূত্র :বরেন্দ্র এক্সপ্রেস

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com