বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বন্যহাতি নষ্ট করেছে ২০০ একর জমির ধান খুলনার রূপসায় ১৭ দিনেও মেলেনি এসএস‌সি পরীক্ষার্থী মৌ‌মি”র খোঁজ  মডেল অঙ্গনওয়াড়ি সেন্টারে শিলান‍্যাস করলেন বিধায়ক শ্রীবিজয় মালাকার বাবার জন্য প্রতীক আনতে যেয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হলো চেয়ারম্যান প্রার্থীর ছেলে চুয়াডাঙ্গা শত্রু মুক্ত দিবস পালন করলো জেলা প্রশাসন মহাসড়কের ৩ কিলোমিটার হোমেন বড়গোহাইন রোড নামে নামকরণ করলেন মুখ‍্যমন্ত্রী   সাংবাদিকরা জোটবদ্ধ, জামিনে মুক্ত অনির্বাণ রায় চৌধুরী চুয়াডাঙ্গায় ৪৫ লক্ষ টাকার স্বর্ণের বার জব্দ তৃতীয় বারের মতো জেলায় শ্রেষ্ঠ হলেন মাধবপুর থানার ওসি শৈলকুপায় নৌকা প্রার্থীর সমর্থকের ৩ মটরসাইকেলে আগুন আহত ৭

সাতক্ষীরায় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীদের ইশতেহার ওয়াশ খাতে অন্তর্ভূক্তির দাবিতে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

খবরের আলো :

শেখ আমিনুর হোসেন,সাতক্ষীরা ব্যুরো চীফ: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের ইশতেহার নিরাপদ পানি, স্যানিটশন ও হাইজিন (ওয়াশ) খাতকে অন্তর্ভুক্তির দাবিতে সাতক্ষীরায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে ‘ঐতিহ্য  উপকুলীয় পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা ফোরাম’এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পাঠ করেন ‘ঐতিহ্য : উপকুলীয় পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা ফোরাম’র সাতক্ষীরা জেলা সভাপতি ও দৈনিক দক্ষিণের মশালের সম্পাদক অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বিগত কয়েক দশকে নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন ও হাইজিন (ওয়াশ) খাতে বাংলাদেশ ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় সকলের জন্য নিরাপদ পানি ও পানি নিষ্কাশনের টেকসই ব্যবস্থাপনা ও প্রাপ্যতা নিশ্চিতকরণ বাংলাদেশ  প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। বাংলাদেশের ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাতেও ওয়াশের বিষয়টি যথেষ্ট গুরুত্ব পেয়েছে। কি কাক্ষিত লক্ষ্যে অর্জন আমাদের পথচলার এখনও অনেক বাকী। বর্তমান দেশের ৯৭ ভাগ মানুষের পানিতে অভিগম্যতা থাকলেও লবণাক্ততা, আর্সেনিক ও আঞ্চলিক দুর্গমতা বিবেচনায় সুপায় নিরাপদ পানিতে ৬০ ভাগ মানুষের অভিগম্যতা নেই। এছাড়া নিরাপদ ও টেকসই স্যানিটেশন সবার আওতায় এসেছে মাত্র ৪৭ ভাগ মানুষ। এমতাঅবস্থায় ওয়াশ খাতকে গুরুত্ব দেওয়ার বিকল্প নেই।
সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের ইশতহারে নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন ও হাইজিন (ওয়াশ) খাতকে অন্তর্ভুক্তের দাবিতে সাত দফা দাবি জানানো হয়। দাবিগুলো হলো- দক্ষিণ-পশ্চিম উপকুলীয় অঞ্চলের ঘরে ঘরে সুপায় পানি নিশ্চিতকরণ, ক্রমবর্ধমান লবণাক্ততা ও আর্সেনিক সমস্যা সমাধান ব্যবস্থা গ্রহণ, সরকারি পুকুর, খাল ও জলাধার উদ্ধার করে মিষ্টি পানির আধারে পরিণত করা এবং ব্যবহার নিশ্চিত করা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সকল প্রতিষ্ঠানে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীবান্ধব স্যানিটেশন সেবা নিশ্চিত করা, দুর্গম ও পিছিয়ে পড়া গ্রামীণ এলাকা এবং শহরের বস্তি ও নিম্ন আয়ের সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীসহ সকলের জন্য ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি, জলাভূমি রক্ষা করে যে কোন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা,পানি ও স্যানিটশেনের ক্ষেত্রে নতুন স্থাপনা নির্মাণর পাশাপাশি পুরাতন স্থাপনাগুলোকে সংস্কার ও মেরামতের মাধ্যমে সচল রাখার জন্য বাজেট বরাদ্দ রাখতে হবে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর আব্দুল হামিদ, সাতক্ষীরা নাগরিক কমিটির আহবায়ক আনিসুর রহিম, সদস্য-সচিব আবুল কালাম আজাদ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল বারী, নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক ফাহিমুল হক কিসলু, সুশীলনের উপ-পরিচালক মোস্তফা আখতারুজ্জামান, ‘ঐতিহ্য : উপকূলীয় পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা ফোরাম’ সাধারণ সম্পাদক মিসেস চদ্রিকা ব্যাণার্জি, আশ্রয় ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মমতাজ খাতুন প্রমুখ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com