শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

সিরাজগঞ্জে ছয় হাজার মানুষের যাতায়াত সরু দু’টি বাঁশে

খবরের আলো :

 

মিঠুন বসাক, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের দু’পারের মানুষের যাতায়াতের জন্য ভরসা বলতে সরু দু’টি বাঁশ। চার গ্রামের প্রায় ছয় হাজার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খালের উপর দিয়ে সাঁকো পারাপার হচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

অপরদিকে জনপ্রতিনিধিরা বিভিন্ন সময়ে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বারবার আশ্বাস দিলেও ব্রিজ নির্মাণে কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের ২৭টি গ্রামের যাতায়াতের সকল রাস্তা পুনঃনির্মাণ এবং সংস্কারের কাজ প্রায় শেষ হয়েছে।

কিন্তু চরছোনগাছা, পোটল ছোনগাছা, টুকরা ছোনগাছা ও ছোনগাছা গ্রামের মাঝখানে খালের উপর দিয়ে ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায় সাধারণ মানুষ উপায়ন্তর না দেখে বাঁশের সাঁকো দিয়েই যাতায়াত করছে। খালের পশ্চিম ও দক্ষিণে একাধিক সরকারি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ৪নং ওয়ার্ডের চারটি গ্রামের মাঝখান দিয়ে যমুনা নদীর সংযোগ কাটাখালিতে বছরের প্রায় ছয়মাস পানি থাকে। চার গ্রামের সাধারণ মানুষের যোগাযোগের একমাত্র পথটি কাটাখালির উপর দিয়ে।

এসব গ্রামে এই নির্জন এলাকা দিয়ে রিকশা, ভ্যানতো দ‚রের কথা হেঁটে চলাচল করাও দুষ্কর হয়ে পড়েছে। এমনকি রোগীকে হাসপাতাল বা স্থানীয় ক্লিনিকে নিতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে এলাকাবাসীর ।

চর ছোনগাছা গ্রামের কৃষক মো. রফিকুল ইসলাম ও আলহাজ আব্দুল কাদের বলেন, আমরা কৃষি পণ্যের উপর নির্ভরশীল। কিন্তু সেই কৃষিপণ্য পরিবহনের কোনো ব্যবস্থা নেই। কৃষি পণ্য পরিবহনে নানা প্রকার ভোগান্তির শিকার হতে হয়। কাটাখালির উপর দিয়ে একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য জন প্রতিনিধিদের একাধিকবার তাগাদা দিয়েছি কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ব্রিজ নির্মাণের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

তারা আরো জানান, গত সপ্তাহে চর ছোনগাছা গ্রামের মো. জহুরুল ইসলামের ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র জাকারিয়া বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যায়। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হলে ছেলেটাকে হয়ত বাঁচানো যেত। এরকম ঘটনা অহরহ ঘটছে।

এ বিষয়ে ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. সেলিম রেজা জানান, এই এলাকায় ৬ হাজার লোকের বসবাস। ব্রিজসহ রাস্তা নির্মাণের প্রকল্প দিয়েছি। যে সময় পরিষদে সরকারি বরাদ্দ আসে সে সময় কাটাখালিতে পানি থাকায় মাটির অভাবে রাস্তা নির্মাণ করা সম্ভব হয় না। তবে ব্রিজটি নির্মাণ হলে মানুষের ভোগান্তি অনেকটা কমে যাবে।

এমন দূর্ভোগের কথা স্বীকার করে ছোনগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও অত্র ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শহিদুল আলম বলেন, একই খালের দক্ষিণে ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি ত্রাণের ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। তবে চরছোনগাছা গ্রামে আরো একটি ব্রিজের প্রয়োজন। এ অর্থবছরে কাজ করা সম্ভব না হলেও আগামী অর্থবছরে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার চেষ্টা করা হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com