সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০২:৩৯ পূর্বাহ্ন

চাষের নতুন পদ্ধতি যন্ত্রের ব্যবহার বাড়বে কমবে সময়,শ্রম, ও খরচ – কৃষিমন্ত্রী 

খবরের আলো :

সিরাজুল  ইসলামঃ

এদেশ কৃষিপ্রধান দেশ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এদেশের যেদিকেই তাকায় সেদিকেই সবুজের সমারোহ আর এসব সবুজের মাঝেই বেঁচে থাকেন বাংলাদেশের কৃষক ও তাদের প্রাণ । কৃষি কাজের ক্ষতি পুষিয়ে কৃষিকে যান্ত্রিকীকরনের মাধ্যমে লাভজনকভাবে গড়ে তোলার জন্য  প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা  তিন হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের ঘোষণা দিয়েছেন। পাশাপাশি কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ ত্বরান্বিত করতে দক্ষ জনবল তৈরিতে ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে কৃষি প্রকৌশলী ২৮৪ পদ সৃজন করা হয়েছে কিন্তু আমাদের দেশের ক্ষেতগুলো ছোট ছোট। তাছাড়া কৃষকরা বিভিন্ন জমিতে বিভিন্ন সময়ে চারা রোপণ করে ফলে কৃষিকাজে যন্ত্রের ব্যবহার সঠিকভাবে করা যায়না।  সমতল পদ্ধতিতে চাষ করলে যন্ত্রের ব্যবহার সহজ হবে কৃষকের সময় খরচ কমবে কৃষক লাভবান হবে।

কৃষিমন্ত্রী ডঃ আব্দুর রাজ্জাক ভোলা গতকাল শনিবার দুপুরে ধনবাড়ী উপজেলায় কেন্দুয়ার হাতীবান্ধা গ্রামে ‘সমালয়’ পদ্ধতিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার এর মাধ্যমে ৫০ একর জমিতে ধানের চারা রোপণ উদ্বোধন ও কৃষক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।।

তিনি আরও বলেন,কেন্দুয়া গ্রামের হাইব্রিড ধানের চাষাবাদ প্রদর্শনী সর্বমোট ৫০ একর জমিতে স্থাপিত হয়েছে যেখানে ৯০ জন উদ্যোগী কৃষক এই কার্যক্রমের সাথে যুক্ত আছে। এর আগে  উচ্চফলনশীল হাইব্রিড এসএল৮  জাতের ধানএকযোগে বীজতলায় বপন করা হয়েছিল চার  হাজার পাচশত ট্রেতে। সেটার অংশ হিসেবে আজ গতকাল একযোগে যন্ত্রের মাধ্যমে ধানের জমিতে রোপণ করা হলো।  চলতি অর্থবছরে সারাদেশের ৬১ টি জেলায় এই মৌসুমে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় সমলয় চাষাবাদ একযোগে চলমান আছে। প্রণোদনা এর আওতায় কৃষকদের হাইব্রিড জাতের ধান বীজ, সার, চারা রোপণ সহ অন্যান্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। তার অংশ হিসেবে ধনবাড়ী উপজেলা এই ব্লগ প্রদর্শনী স্থাপিত হয়েছে। সমলয় চাষের নতুন পদ্ধতি সবাই মিলে একটি ব্লকে একসঙ্গে একই জাতের ধান একই সময়ে যন্ত্রের মাধ্যমে রোপণ করা হয়। বীজতলা থেকে সকল প্রক্রিয়া যন্ত্রের সাহায্যে সম্পাদন করা হয়। এ পদ্ধতিতে ধান আবাদ করতে হলে চারা তৈরি করতে হয় ট্রেতে। ট্রেতে চারা উৎপাদনে জমির অপচয় কম হয়। রাইস ট্রান্সপ্লান্টার দিয়ে চারা একই গভীরতা সমান ভাবে লাগানো যায়,  একই সময়ে ফসল ঘরে তুলতে পারে কারণ একসঙ্গে রোপণ করা এসব ধান পাকে একই সময়ে। তখন ধান কাটার মেশিন দিয়ে একই সঙ্গে সব ধান কর্তন ও মাড়াই করা যাবে। এসব কারণে সময়লয় পদ্ধতিতে যন্ত্রের ব্যবহার সহজ ও বৃদ্ধি হবে। ফলে ধান চাষের সময়, শ্রম ও খরচ কম লাগবে তেমনি উৎপাদন হবে বেশি এতে লাভবান হবেন কৃষকরা। কৃষি কার্যক্রম সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে কৃষকদের চাহিদামাফিক অনেক ক্ষেত্রে কঠিন হয়ে যায়। সময় মত শ্রমিক না পাওয়া গেলে একদিকে যেমন উৎপাদন ব্যাহত হয় অন্যদিকে উচ্চমূল্যের সংগ্রহ করতে গিয়ে উৎপাদন খরচ বেশি হয়। কৃষি যান্ত্রিকীকরণ এর মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে উত্তরণ ঘটানো সম্ভব কিন্তু বিভিন্ন জমিতে বিভিন্ন সময়ে চারা রোপণ করা হলে যান্ত্রিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা কঠিন হয়ে যায়। সমলয় পদ্ধতিতে চাষে এসব সমস্যার সমাধান করা সম্ভব।

 এসময় কৃষকসমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ মেজবাহুল ইসলাম। বিএডিসির চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুল ইসলাম ব্রির মহাপরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান কোভিদ কবীর। এসময় অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ আসাদুল্লাহ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com