বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১০:৫৫ অপরাহ্ন

পুরো দেশ জিম্মি হয়ে আছে

তসলিমা নাসরিন

হেফাজতে ইসলামের মামুনুল হককে নিয়ে অশালীন পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে ঝুমন দাস আপনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই খবরটি পড়ে মনে পড়লো চার বছর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে কী ঘটেছিল। রসরাজ দাস নামের এক লেখাপড়া-না-জানা জেলের বিরুদ্ধে ইসলামবিদ্বেষী পোস্ট দেওয়ার অভিযোগ এনে হিন্দুদের মন্দির এবং বাড়িঘর ভেঙে ফেলেছিল ক্ষুব্ধ মুসলমানেরা। রসরাজ দাসের পক্ষে ফেসবুকে পোস্ট করা সম্ভব ছিল না, তার কোনও ফেসবুক আইডিও ছিল না।

মুসলমান জনগণকে হিন্দুদের বিরুদ্ধে ক্রুদ্ধ ক্ষিপ্ত উন্মত্ত করার জন্য এই কাজগুলো, প্রমাণ পাওয়া গেছে, মুসলমানরাই করেছে। নির্দোষ রসরাজ দাসকে কারাগারে কাটাতে হয়েছে কয়েক মাস, বেরিয়ে আসার পর তাঁর নিরাপত্তার অভাব দেখা দিয়েছিল, দেবেই তো, উত্তেজিত মুসলমানরা এক পায়ে খাঁড়া ছিল তাঁকে পিটিয়ে মেরে ফেলার জন্য। কে আর খতিয়ে দেখে কর্মটি আসলে কে করেছে। জানি না রসরাজ দাস এখন কেমন আছেন, বেঁচে আছেন কি না। বেঁচে থাকলে নাসিরনগরে আর বাস করতে পারছেন কি না।

নাসিরনগরে হামলার এক বছরের মধ্যে রংপুরের গঙ্গাচড়াতেও এমন ঘটনা ঘটে। একই কায়দায় টিটু রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছিল, টিটু রায় নাকি ফেসবুকে ইসলাম অবমাননা করেছে, অমনি উত্তেজিত মুসলমান হিন্দুপাড়ায় গিয়ে যত বাড়িঘর মন্দির ছিল, সব ধ্বংস করে দিয়েছে।
টিটু রায় গঙ্গাচড়ায় ছিলেন না, ছিলেন নারায়ণগঞ্জে। তাঁকে পরে নীলফামারী থেকে গ্রেফতার করা হয়। লেখাপড়া-না-জানা নির্দোষ টিটু রায় এখন কোথায় আছেন, আদৌ বেঁচে আছেন কি না কে জানে। বাংলাদেশে বসে কোনও হিন্দুর যে বুকের পাটা নেই ইসলাম অবমাননা করার-সে সবাই জানে। বৌদ্ধদের বিরুদ্ধেও একই ষড়যন্ত্র চলে। মনে আছে কক্সবাজারের রামুতে উত্তম বড়ুয়া নামের এক বৌদ্ধ তরুণের বিরুদ্ধে একবার অভিযোগ ওঠানো হয়েছিল, উত্তম বড়ুয়া নাকি ইসলাম-অবমাননা করেছেন, ব্যস খবর শুনে উত্তেজিত জনতা যত বৌদ্ধ মন্দির আর বাড়িঘর ছিল রামুতে ভেঙেচুরে পুড়িয়ে দিয়েছিল? পরে অবশ্য উত্তম বড়ুয়া নামে কেউ আছে বলে প্রমাণ মেলেনি।

সুনামগঞ্জের ঝুমন দাস আমনকে যে গ্রেফতার করা হয়েছে, এও হিন্দুবিদ্বেষীদের ষড়যন্ত্রের অংশ। এমনিতে সংখ্যালঘুরা নির্যাতনের ভয়ে দেশান্তরী হচ্ছে, তারপরও এই বিদ্বেষ কোনওভাবেই দূর করা হচ্ছে না, বরং দিন দিন ঘনীভূত হচ্ছে। কবে শান্ত হবে হিন্দুবিদ্বেষীরা? এর সহজ উত্তরটি অনেকে দেয়, বলে, হিন্দুসংখ্যা যখন শূন্য হবে! শতভাগ মুসলমানের দেশেই নাকি গড়ে তুলতে হয় দারুল ইসলাম নামের স্বপ্ন-ভূমি। জানি না সেই স্বপ্নভূমিতে মোট ক’জন শুভবুদ্ধিসম্পন্ন বিবেকবান মুসলমানের বাস করা সম্ভব হবে।

ঝুমন দাস আপনকে যে গ্রেফতার করা হলো, অবশেষে কী হবে? হবে সেই রসরাজ দাস আর টিটু রায়ের হাল। হয়তো জীবন বাঁচানোর জন্য তাকে বাংলাদেশ ত্যাগ করতে হবে। এই তো হচ্ছে বাংলাদেশে আর পাকিস্তানে। পাকিস্তানের মৌলবাদীদের আক্রোশের ফলে সংখ্যালঘু ক্রিশ্চান সম্প্রদায়, শিয়া মুসলিম, আহমদিয়া মুসলিম, হিন্দু এবং মুক্তচিন্তকদের যে হাল হচ্ছে, বাংলাদেশেও তাই হচ্ছে। আমরা কি সভ্য দেশের নীতি আদর্শ গ্রহণ না করে পাকিস্তানের বর্বরতা আর সাম্প্রদায়িকতাকে অনুসরণ করব? এ কারণেই কি আমরা একাত্তরে পাকিস্তানিদের হটিয়ে দেশকে আলাদা করেছিলাম।

এককালে ব্রিটিশ রাজ সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের আক্রমণ থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে বাঁচাবার জন্য, সংখ্যালঘুর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়াকে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে আইন তৈরি করেছিলেন, সেই আইন এখন ব্যবহার করা হয় ধর্মীয় সংখ্যালঘুকে আক্রমণ করার জন্য, মুক্তচিন্তক-সংখ্যালঘুকে কারাদন্ড অথবা নির্বাসনদন্ড দেওয়ার জন্য। সেই আইনের অনুকরণে দেশে আরও আইন তৈরি হয়েছে যেন, অন্তর্জালেও বাকস্বাধীনতা বলে কিছু না থাকে। মূলত সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের হিংস্রতা, নির্মমতা, সাম্প্রদায়িকতা, বিরোধ, বিদ্বেষ আর জাত্যাভিমানকে প্রশ্রয় দেওয়ার জন্যই বাকস্বাধীনতাবিরোধী আইন ব্যবহৃত হয়। ওয়াজ মাহফিলগুলোয় প্রকাশ্যে যেসব নারীবিদ্বেষী, প্রগতিবিদ্বেষী, মানবতাবিরোধী, সংখ্যালঘুবিরোধী কথা বলা হচ্ছে, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোয় যেভাবে মুক্তচিন্তকদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানো হচ্ছে, ইউটিউবে আপলোড করে যেসব ঘৃণা কোটি মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে, নাশকতামূলক কাজ করার জন্য ইন্ধন জোগানো হচ্ছে, নিরপরাধ মানুষের সহায় সম্পত্তির ওপর হামলা করার জন্য যেভাবে মানুষকে লেলিয়ে দেওয়া হচ্ছে, তা যত ভয়ংকর অপরাধই হোক না কেন, কোনও অপরাধীকেই কিন্তু গ্রেফতার করা হয় না, তাদের কোনও বিচার হয় না। সংখ্যাগুরু হওয়ার কারণে তারা সমস্ত অপকর্ম থেকে বেঁচে যায়। মৌলবাদীরা অবশ্য জোর গলায় আজকাল বলেও, যে, শতকরা ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশ এটি, সুতরাং ইসলামী আদর্শে, ইসলামী আইনে, ইসলামী মূল্যবোধে চলবে দেশ। কিন্তু মুশকিল হলো, মুসলমানরা সবাই এক মানসিকতার নয়। সবাই কট্টর ইসলামের অনুসারী নয়। উদার মুসলমানেরা মৌলবাদীদের ভয়ে তটস্থ থাকে।

 

আড়ং-এর মতো নামিদামি একটি প্রতিষ্ঠানকেও কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছে, এত শক্তিধর এই মৌলবাদী গোষ্ঠী। আড়ং-এর ব্যবসার যে রীতিনীতি তা মৌলবাদীরা মানবে না, সুতরাং আড়ং-এর কর্মকর্তাদের তৈরি করা নিয়ম অনুযায়ী আড়ং চলবে না, চলবে মৌলবাদীদের তৈরি করা নিয়ম অনুযায়ী। এরা ধরেই নিয়েছে দাড়ি মানেই ধর্মীয় দাড়ি। এরা কি জানে না চার্লস ডারইউনের দাড়ি ছিল, গ্যালিলিওর দাড়ি ছিল, মার্ক্স, লেনিনের দাড়ি ছিল। আব্রাহাম লিংকনের, লিও টলস্টয়ের, এমনকি আমাদের রবীন্দ্রনাথেরও দাড়ি ছিল। হিন্দু পীর যে ধর্ষণের দায়ে এখন কারাগারে, সেই আশারাম বাপুরও দাড়ি আছে। সব দাড়িতে ধর্ম থাকে না। নানা রকম নিরীহ দাড়ি আছে জগতে, বোহেমিয়ান দাড়ি, ফ্যাশানের দাড়ি, শিল্পীর দাড়ি, কবির দাড়ি। ওদিকে আবার আছে মোল্লার দাড়ি, জিহাদি দাড়ি, ইহুদি দাড়ি। ইহুদি-মৌলবাদীদের তো দাড়িই কাটা বারণ।

 

আড়ং-এর বিরুদ্ধে ইসলামী সংগঠনগুলোর বিক্ষোভ দেখে আমি আক্ষরিক অর্থে প্রমাদ গুনছি। মনে হচ্ছে এরা পুরো দেশকে নিজেদের হাতের মুঠোয় নিয়ে নিতে চাইছে। সর্বত্র অবাধ বিচরণ চাইছে। দোষটা সরকারের, সরকার যখন থেকে তাদের মাদরাসার ডিগ্রিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রির সমমানের করে দিল, তখন থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে তারা মাদরাসা বলে মনে করছে, আর সব অফিস-আদালত, দোকানপাটকে নিজস্ব সম্পত্তি বলে মনে করছে। আড়ং-কর্মকর্তা যদি কাউকে চাকরি না দেন বা চাকরি থেকে বহিষ্কার করেন, তবে আমাদের বুঝতে হবে তিনি ক্রেতা-বিক্রেতা সকলের কল্যাণের কথা ভেবেই কাজটি করেছেন।

 

কিন্তু মৌলবাদীদের আক্রমণের মুখে আড়ং-এর মতো প্রভাবশালী প্রতিষ্ঠানকেও মাথা নত করতে হলো, দুঃখ প্রকাশ করতে হলো। এমন অনেক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে আছে, যেখানে চাকরি পেতে হলে দাড়ি রাখতে হবে, জোব্বা পরতে হবে, মাথায় টুপি পরতে হবে। এসব ছাড়া সেখানে চাকরি জোটে না। এই নিয়মের বিরুদ্ধে কেউ তো ঝান্ডা নিয়ে বেরোয় না। তবে একটি প্রতিষ্ঠানে যদি জিহাদি দাড়ি নিয়ে আপত্তি করা হয়, তাহলে এত তা-ব কেন? এর মানে, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ধর্মের রীতি মেনে চলবে, যে প্রতিষ্ঠান ধর্মীয় নয়, সেসব প্রতিষ্ঠানকেও ধর্মের রীতি মেনে চলতে হবে! চাকরি তো দূরের কথা, মেয়েদের প্রবেশাধিকার নেই কত কত ধর্মীয় স্থানে। অনেক মেয়েরই অধিকার নেই নিজের পছন্দ অনুযায়ী পোশাক পরার। মৌলবাদীদের রক্তচক্ষু মেয়েদের ওপর, সে কি আজ থেকে! তারা যদি সমতায় বিশ্বাস করতো, তাহলে মেয়েরা কী পরবে, কোথায় যাবে, কী করবে, কার সঙ্গে যাবে ইত্যাদি ঠিক করে দিত না।

 

মৌলবাদীরা নিজেরা সমতায় বিশ্বাস না করলেও অন্য প্রতিষ্ঠানের কাছে সমতা দাবি করে। এর নাম হিপোক্রেসি। আমরা বহুকাল তাদের হিপোক্রেসি দেখছি, কিন্তু, ওই যে বললাম, আমাদের মুখে কুলুপ আঁটা। এই কুলুপ যত না মৌলবাদীদের ভয়ে, তার চেয়ে বেশি সরকারের ভয়ে। কারণ জনতার দুঃসময়ে জনতার পাশে না দাঁড়িয়ে সরকার দাঁড়ায় অপরাধীদের পাশে। আড়ং-এর এই ঘটনার পর মৌলবাদী, জিহাদি, জঙ্গি যে কোনও প্রতিষ্ঠানে ঢুকেই চাকরি বা ব্যবসা করতে চাইবে, আপত্তি জানালে রাস্তায় আন্দোলন করবে তারা। হাতের নাগালে প্রতিষ্ঠানের কর্তাদের পেলে খুনও করে ফেলতে পারে। এদের ভয়ে এদের চাকরি দেবে বা ব্যবসায় অংশীদার করবে প্রতিষ্ঠানগুলো। এরাই ঘরে ঘরে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে জিহাদের আদর্শ দিয়ে মানুষের মগজধোলাই করতে থাকবে। ভবিষ্যৎ অন্ধকার। এ সময় সরকারকে জাগতে হবে। শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে ধর্মের নামে মানুষকে ভয় দেখানোর এবং দেশকে জিম্মি করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করার রাজনীতি। বন্ধ করতে হবে সংখ্যালঘু নির্যাতন। পঙ্গপাল দেখে ভয় পেলে চলবে কেন, চাইলেই একে প্রতিরোধ করতে পারি আমরা। ভয়-ডর বাদ দিয়ে শুধু প্রতিরোধের কাজটি করে যেতে হবে।

 

আজ মৌলবাদীদের দাবির সামনে মাথা নত করছে আড়ং, নিশ্চয়ই আরও অনেক প্রতিষ্ঠান এভাবেই মাথা নত করেছে। সরকার তো অনেক আগেই করেছে, সাধারণ মানুষও উপায় না দেখে করে নিয়েছে। সারা পৃথিবীতে মৌলবাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে, শুধু বাংলাদেশেই তাদের যা ইচ্ছে তা করতে পারার অধিকার সীমাহীন। ওদের ঝান্ডা ওড়ানোর জন্য এমন উর্বর স্থান, ওরা খুব ভালো জানে যে, পাকিস্তানও নয়। পাকিস্তানের পুরনো এই দোসরদের হাত থেকে মুক্তি পেতে হলে আরও একটি স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রয়োজন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com