শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ১২:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নাটোরে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৩৭৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার  স্পেনের জাতীয় জাদুঘরে অভিবাসীদের আনন্দ উৎসব পরকীয়া করতে এসে ধরা খেল  প্রেমিক!  থানায় মামলা, প্রেমিক শ্রীঘরে! রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নারীদের গুরুত্ব নিয়ে ফেসবুকে আবেগময় পোস্ট করেন মামূনি খান (মনি)   ত্রিমোহনী সেতু প্রবেশ মুখে  গর্তের সৃষ্টি হয়েছে,  ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে নতুন সড়কের উদ্ভোদন করলেন নুরুল ইসলাম রাজা শরীয়তপুরে ২ হাজার ৭৩২ পিচ ইয়াবা সহ আটক মাদক ব্যবসায়ী ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের তালিকাভুক্ত কুখ্যাত ডাকাত ফারুক গ্রেপ্তার বড়াইগ্রামে ট্রাক-পিকআপ মুখোমুখি সংঘর্ষে পিকআপ চালক নিহত উদাসীনতায় হিলিতে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

শ্রীপুরে ১০/১২টি প্রবাহমান খাল কারখানার বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে

খবরের আলো :

 

মহিউদ্দিন আহমেদ

গাজীপুরের  শ্রীপুরে প্রায় ১০-১২টি খাল প্রবাহমান। এর মধ্যে লবলং খাল, ধাউর খাল, টেংরার খাল, কাটার খাল, সেরার খাল, চোক্কার খাল, কেওয়ার খাল, তরুণের খাল, সালদহ খাল অন্যতম। এ খালগুলোকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন ধরনের শিল্প-কারখানা। কল-কালখানার বিষাক্ত বর্জ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে লবলং খাল।সেই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে খালের আশপাশের কৃষি জমি। কল-কাখানার নানা রকমের বিষাক্ত বর্জ্য খালের পানিতে মিশে তা কৃষি জমিতে গিয়ে পড়ছে। এতে কৃষি জমি উর্বরতা হারাচ্ছে।

ফলে এসব জমিতে ফসল উৎপাদন হচ্ছে না এদিকে, খালে পানিতে আবাসস্থল হারাচ্ছে দেশি প্রজাতির মাছ ও বিভিন্ন প্রকারের জলজপ্রাণি। খালের পাড়ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকা গাছপালাও মারা যাচ্ছে। এতে মারাত্মক বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে পরিবেশ। ফলে খালকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা ওসব এলাকার কৃষিনির্ভর অর্থনীতি আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে।লবলং খালের স্থানে কয়েক বিঘা খানেক চাষের জমি রয়েছে কৃষক স্থানীয় বাসিন্দা ও ভুক্তভোগী নজরুল ইসলাম বলেন, কয়েক বছর আগেও এই খালের পানি ব্যবহার করে সব ধরনের চাষাবাদ করতেন। খালকেন্দ্রিক বিভিন্ন কল-কারখানা নির্মাণের পর এর পানি দূষণ হওয়া শুরু হয়।

পানি ব্যবহারের পরিবেশ নষ্ট হয়ে যায়। সামান্য বৃষ্টিতেই পানি উপচে কৃষি জমিতে উঠে যায়। এতে ধানের খেতে আগের মতো ফসল তো হয়ই না, এখন খালের পানি খেতে ঢুকলে ধান গাছের চারাও মরে যায়।বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দল,শ্রীপুর শাখা সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম বলেন, গাজীপুরের লবলং খালটি একটি বৃহৎ খাল বলা যেতে পারে। এই খালের পানি দূষিত মাত্রা অতিক্রম করেছে। খালের পানি এতটাই কম্পোজিট হয়ে পড়েছে যে এই পানি অনেক জায়গায়ই জেলির মত।

কেমিক্যাল মিশ্রিত এবং ভারি জৈব ধাতব মৌল সংমিশ্রিত। এলাকার পানির পিএইচ ঘনমাত্রা তো কমছেই তার সঙ্গে বর্ষাকালে পানিগুলো ছড়িয়ে পড়ছে ধানখেতসহ বিভিন্ন কৃষকের ফসলের খেতে। অবাক করা বিষয় হলো এ বিষয়ে কৃষকরা সচেতন নয়। ভারি ধাতু মিশ্রিত পানিগুলো ধান ও কৃষকের বিভিন্ন ফলের মাধ্যমে মানুষের শরীরে পৌঁছে যাচ্ছে।শুধু ভারি ধাতু মিশ্রিত বললে ভুল হবে কারণ এই খালেই ফেলা হয় বিভিন্ন কল-কারখানা কেমিক্যাল মিশ্রিত পানি ও বর্জ্য, হাসপাতালে বর্জ্য, বিভিন্ন প্রাণির মরদেহ ও মনুষ্য বর্জ্যও।

দ্রুত খালটির পানি সরকার থেকেই পরীক্ষা করা প্রয়োজন এবং কোন কোন জায়গায় সরকারি উদ্যোগে সেন্ট্রাল ইটিপি স্থাপন করা প্রয়োজন। যদি দ্রুত এ ব্যবস্থাগুলো করা না যায় তবে এই এলাকাটি দূষিত পানির খনিতে পরিণত হবে। যা হতে পারে মানব স্বাস্থ্যের জন্য খুব বেশি উদ্বেগজনক।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com