রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৮:২৫ অপরাহ্ন

তবুও তিনি ডাক্তার !

কথিত ডাক্তার ঝিনাইদহ কোটচাঁদপুরের হাসানুজ্জামান জনি।

স্টাফ রিপোর্টার ঝিনাইদহঃ

কোটচাঁদপুর হসপিটাল রোডের ফ্যামিলি ডেন্টাল কেয়ার এর মালিক ও চিকিৎসক পরিচয়দানকারী হাসানুজ্জামান জনির চিকিৎসার উপরে নেই ডিগ্রি  বা কোনো নিবন্ধন তবুও তিনি পরিচয় দেন ডাক্তার। তার অপচিকিৎসা বন্ধ করার জন্যে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল থেকে “কোটচাঁদপুর সদর থানার ভার প্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে চিঠি এসেছে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছেঃ- জৈনক বেক্তি হাসানুজ্জামান জনি, চেম্বার; ফ্যামিলি ডেন্টাল কেয়ার, হাসপাতাল রোড, কোটচাঁদপুর, ঝিনাইদহ। তিনি তাহার প্রেসক্রিপশন প্যাডে ( বিএসসি ডেন্টাল ঢাঃবি) এম এস সি (নিউট্রিশন) এম পি এইচ প্রিভেন্ট ডেন্টিস্ট ঢাকা। এই ধরনের বিভিন্ন ডিগ্রি ব্যবহার করে চিকিৎসা কার্য পরিচালনা করছেন। উক্ত ডিগ্রি বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃতপ্রাপ্ত ডিগ্রি নয়। চিকিৎসা কার্য পরিচালনা করার জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল থেকে তাকে কোনো রেজিষ্ট্রেশন দেয়া হইনি। উল্লেখ্য যে,অত্র কাউন্সিলের রেজিষ্ট্রেশন ব্যতীত কেউ চিকিৎসা কার্য পরিচালনা করলে তাহা হইবে আইনের পরিপন্থী। তাহাকে চিকিৎসা কার্যে সহায়তা প্রদান করাও হবে দন্ডনীয় অপরাধ।

এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ সনের ৬১ নং আইনে আপনার অবগতির জন্য উদ্ধৃত হইল। নিবন্ধন ব্যতীত এলোপ্যাথি চিকিৎসা নিষিদ্ধ। অন্য কোনো আইনে যাহা কিছুই থাকুক না কেন এই আইনের অধীনে কোনো মেডিকেল চিকিৎসক বা ডেন্টাল চিকিৎসক এলোপ্যাথি চিকিৎসা করিতে অথবা নিজেকে মেডিকেল চিকিৎসক বা ক্ষেত্রমতে ডেন্টাল চিকিৎসক বলিয়া পরিচয় প্রদান করিতে পারিবে না। এই আইন কোনো ব্যাক্তি লঙ্ঘন করিলে ৩ বৎসরের কারাদণ্ড অথবা ১ লক্ষ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হইবে। অতি দ্রুত তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ রইলো।

ফ্যামিলি ডেন্টাল কেয়ারের ডক্টর হিসাবে পরিচয় প্রদানকারি হাসানুজ্জামান জনি অবৈধ ভাবে নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে সাধারণ জনগণের সাথে যে প্রতারনা করে আসছেন তার কি প্রতিকার হবে না..? এই বিষয়ে কোটচাঁদপুর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন ইতিপূর্বে হাসানুজ্জামান জনির কার্যকালাপের উপরে তদন্ত হয়েছে, তাকে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে. যদি তিনি আবারো একই ধরনের অপরাধ করে থাকেন তবে পুনরায় তদন্ত করা হবে। ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডক্টর সেলিনার কাছে বিষয়টি জানানো হলে তিনি বল্লেন তিনি বিষয়টি জানতেন না,তিনি খোজ নিচ্ছেন এবং ঘটনার সত্যতা যাচাই বাছাই করে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

কোটচাঁদপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মঈন উদ্দিনের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন ” হাসানুজ্জামান এর বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ রয়েছে, এর মধ্যে তার স্ত্রী তালাক থেকে শুরু করে অবৈধ ভাবে নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে অপচিকিৎসায় মানুষ ঠকানোর ব্যবসা সম্প্রসারণ। তিনি বলেন যদি সিভিল সার্জন অথবা কোটচাঁদপুর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমাদের অবহিত করেন তবে অবশ্যই হাসানুজ্জামান এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোন ক্ষমতার বলে হাসানুজ্জামন জনি চালিয়ে যাচ্ছেন অবৈধ ডেন্টাল চিকিৎসা এবং নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন তার সমস্ত কাগজপত্রে। কোটচাঁদপুর হসপিটাল রোডে অবস্থিত এই ফ্যামিলি ডেন্টাল কেয়ার এর ডক্টর পরিচয় দিয়ে অপচিকিৎসা দেওয়া হাসানুজ্জামান জনির, নামে রয়েছে নারী কেলেঙ্কারী এলাকার লোক মুখে রটে আছে এছাড়াও রয়েছেন নানান অভিযোগ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com