বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০১:০১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
অন্ন বস্ত্রের সমাধানের পর গৃহহীনদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা -তথ্যমন্ত্রী   বিত্ত কখনো রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা -তথ্যমন্ত্রী বাইডেনের শপথের সব আয়োজন সম্পন্ন, নজিরবিহীন নিরাপত্তা শিগগিরই ভ্যাকসিন বিতরণ কার্যক্রম শুরু : সংসদে প্রধানমন্ত্রী সিরাজগঞ্জে অবৈধ ৩টি ইটভাটায়  ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ লক্ষ টাকা জরিমানা নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি বেলকুচিতে আলোচিত পিতা-পুত্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আটক স্পেনে তীব্র তুষারপাতে জনজীবন অচল: যান চলাচল বন্ধ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা গ্রেফতার দোহারে অবৈধ ড্রেজার পাইপ ভেঙ্গে দিল প্রশাসন 

সাড়ে ৩ লাখ টাকা দিয়েও বিদ্যুৎ না পাওয়ার অভিযোগ

খবরের আলো :

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ সরকারি মাস্টারপ্ল্যানের অন্তর্ভুক্ত বিদ্যুৎ লাইনের খবর পেয়ে  বিনামূল্যে প্রাপ্য বিদ্যুৎ ১৫ হাজার টাকা চুক্তি করে মিটার প্রতি ১০ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে শ্রীপুর থানায়।
বিদ্যুৎ খাত কে পুজি করে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ জোনাল অফিস মাওনা এর অনেক ঠিকাদার এরশাদুল ইসলাম সরকারি বিদ্যুৎ লাইনের খবর পেয়ে উপজেলার টেপিরবাড়ি গ্রাম থেকে ৩ লক্ষ্য ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। টাকা নেয়ার ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য জয়নাল আবেদীন (পিউর) অবগত রয়েছেন।
এ ব্যাপারে শ্রীপুর থানার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার তেলিহাটী ইউনিয়নের টেপিরবাড়ি গ্রাম থেকে ৩৫ টি মিটার দেয়ার কথা বলে ১০ হাজার করে মোট ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নেয় আরও ২ বছর আগে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিদ্যুৎ পায়নি কেউ।
স্থানীয়রা জানায়, গ্রামের সহজ সরল মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে টেপিরবাড়ি গ্রামের আহাম্মদ আলীর পুত্র এরশাদুল ইসলাম। সে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ মাওনা জোনাল অফিসের ঠিকাদার। প্রায় ২ বছর আগে মিটার প্রতি ১০ হাজার টাকা করে নিয়েছেন তিনি।
টেপিরবাড়ি গ্রামের বিদ্যুৎ সংযোগ প্রার্থী মতিউর রহমান, আতাউর রহমান, কফিল উদ্দিন, তারা মিয়া, আবুল হোসেন, চাঁন মিয়া, বিল্লাল হোসেন, লিটন ও আলামিন জানান, ৩৫ জন বিদ্যুৎ সংযোগ প্রার্থীর কাছ থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এরশাদুল ইসলাম। বিদ্যুতের জন্য মিটার প্রতি ১০ হাজার টাকা করে দিয়েছিলাম। কিন্তু ২ বছর পার হয়ে গেলেও আমরা এখনো বিদ্যুৎ পাইনি। আমরা এখন নিরুপায়, আর টাকা দিতে পারবো না। এটা মাষ্টার প্ল্যানের সরকারি বিদ্যুৎ । আমরা তখন বুঝতে পারিনি! আমাদের সরলতার  সুযোগ নিয়ে এরশাদুল ইসলাম আমাদের ৩৫ জনকে ঠকিয়েছে! আমরা তার বিচার দাবী করছি, সেইসাথে আমাদের সকলের টাকা ফেরত চাচ্ছি। সরকারি মাষ্টাপ্ল্যানের বিদ্যুৎ আমরা নিয়ম অনুযায়ী মিটারের আবেদন করে আনতে পারবো! আমরা সবাই গরীব মেহনতী মানুষ! আমাদের  টাকা ফেরত চাই এবং এই প্রতারক এরশাদুল ইসলামের বিচার চাই! এ ব্যাপারে শ্রীপুর থানা প্রশাসনের আন্তরিক দৃষ্টি চাই!
উল্লেখিত বিষয়ে অভিযুক্ত এরশাদুল ইসলামের থেকে জানার জন্য মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি।
উপজেলার তেলিহাটী ইউনিয়নের ৮ নং ইউপি সদস্য জয়নাল আবেদীন (পিউর) জানান, আমি টাকা দেয়ার বিষয়টা অবগত রয়েছি। এরশাদুল ইসলাম আরও ২ বছর আগে চুক্তি করে ১ বছেরের মধ্যেই বিদ্যুৎ দেবে। কিন্তু ২ বছরেও বিদ্যুৎ দিতে পারেনি সে। আমাকে কল দিয়ে আজ বললো আাগামী সোমবারের মধ্যে কাজ শুরু করবে।
ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২-এর মাওনা জোনাল অফিসের এজিএম তাইজুদ্দিন ‘দৈনিক প্রথম ভোর কে’ জানান, সরকার বিনামূল্যে বিদ্যুৎ দিচ্ছে আরও অনেক আগে থেকেই। এ ব্যাপারে আমরা লিফলেটসহ সচেতনতা মূলক প্রচার করেছি। ২ বছর আগেও বিদ্যুতের জন্য মিটার প্রতি সর্বোচ্চ ৮০০ টাকা খরচ হতো এখনও সেই খরচই হয়। কোনও দালালের বিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার সুযোগ নেই।
উল্লেখিত বিষয়ে শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক হারুন উর-রশীদ ‘জানায় অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com