সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
তামুলপুরে মুখ‍্যমন্ত্রী ডঃ হিমন্ত ১১শ ৫ জন প্রাক্তন ক‍্যাডারদের মাঝে ৪লক্ষ টাকার ফিক্সড ডিপোজিট সার্টিফিকেট বিতরণ করলেন। রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির শ্রেষ্ঠ স্বেচ্ছাসেবকদের সম্মাননা ও পুরস্কার প্রদান শেরপুরে শীত বাড়াতে লেপ-তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা          আম গাছে ঝুলছিল স্কুল ছাত্রীর লাশ অর্থ আত্মসাৎ অভিযোগে নায়িকা জ্যাকুলিন আটক চন্দনাইশের সাতবাড়ীয়া নির্বাচনে সাফাত বিন ছানাউল্লাহ্’র মনোনয়নপত্র সংগ্রহ মানবিক মেম্বার আলম হাওলাদারের সাথে ড্রিম লাইট’র সৌজন্য সাক্ষাৎ শেরপুরে সেবার মান নিশ্চিতকরণে নাগরিক কমিটির মতবিনিময় রাষ্ট্রদ্রোহী মামলায় অভিযুক্ত হলেন সাংবাদিক মৌলভীবাজারে “মেছো বাঘ” হত্যার দায়ে সাজা

কথিত চক্ষু চিকিৎসক “সুমন কুমার বালাকে” কোটচাঁদপুর ছাড়ার নির্দেশ দিলেন ইউএনও

কোটচাঁদপুরের কথিত চক্ষু চিকিৎসক সুমন কুমার বালাকে মোটসাইকেলের পিছনে বসিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ইউএনও অফিসে।

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, কোটচাঁদপুর ঝিনাইদহঃ

“ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে বন্ধ হয়নি অবৈধ চক্ষু চিকিৎসা প্রশাসনের আদেশ উপেক্ষা খুটির জোর কোথায়”। দৈনিক খবরের আলো সহ চক্ষু চিকিৎসা কেন্দ্র নিয়ে বেশ কিছু জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় বারবার সংবাদ প্রকাশ হলেও বন্ধ হয়নি কথিত চিকিৎসা বানিজ্য।

সংবাদ টি উপজেলা প্রশাসনে নজরে পড়লে ( ৯ নভেম্বর) মঙ্গলবার সকালে উপজেলা প্রশাসনে পক্ষ থেকে কোটচাঁদপুর প্রাথমিক চক্ষু রোগ নিরাময় কেন্দ্রে কথিত ডাঃ সুমন কুমার বালা চক্ষু রোগীর চিকিৎসা দেওয়া অবস্থায় উঠিয়ে নির্বাহী অফিসারে কক্ষে নিয়ে চক্ষু চিকিৎসার উপর কোনো ডিগ্রি না থাকলেও, চক্ষু চিকিৎসা দেওয়ার অপরাধ প্রাথমিক ভাবে প্রথম বারের মতো ক্ষমা করে।

ইউএনও’র নির্দেশে যখন টেনেহিঁচড়ে বের করে আনা হয় কথিত চক্ষু চিকিৎসক সুমন কুমার বালাকে।

অপচিকিৎসা না দেওয়া সহ বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দিয়ে কোটচাঁদপুর ছাড়ার নির্দেশ দেন নির্বাহী অফিসার মোঃ দেলোয়ার হোসেন। নির্দেশ উপেক্ষা করে ঔ চিকিৎসা কেন্দ্র যদি সঠিক ডিগ্রি ধারী ডাক্তার ছাড়া কথিত বা ভুয়া ডাক্তার দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করা হয় তাহলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান টি সিলগালা করা হবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ-কলেজষ্ট্যান্ড সংলগ্ন হাইওয়ে রাস্তার পাশে অবস্তিত সাবেক ভূমি কর্মকর্তা শুকুর আলীর নিজ বাড়ীতে সুমন কুমার বালা নামে এক প্যারামেডিক বসিয়ে ডাক্তার পরিচয়ে প্রতিনিয়ত দিচ্ছেন চক্ষু চিকিৎসা। প্রতিষ্ঠানের সামনে চটকদার বিজ্ঞাপন ও ডাঃ সবুজ আহমেদ (এফ.সি.পি,এস) এর বড় ব্যানার টাঙিয়ে প্রতিনিয়ত হয়রানি করছেন চিকিৎসা নিতে আসা চক্ষু রোগীদের।

উল্লেখ-কলেজষ্ট্যান্ড সংলগ্ন হাইওয়ে রাস্তার পাশে অবস্তিত সাবেক ভূমি কর্মকর্তা শুকুর আলীর নিজ বাড়ীতে সুমন কুমার বালা প্রতিষ্ঠানের সামনে চটকদারি বিজ্ঞাপন সম্বলীত একাধিক সাইনবোর্ড।

এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের সামনে বসিয়ে রাখা হয়েছে ৪/৫ জন দালাল, যাদের কাজই হচ্ছে রাস্তা থেকে রোগী ধরে এনে তাদেরকে ম্যানেজ করা, কখনও আর-দীন হাসপাতাল কখনও সরকারী ডাক্তার কখনও আবার যশোর সদর হাসপাতালের ডাক্তার পরিচয়ে রোগীদের হয়রানী করা হচ্ছে। ডাঃ সুমন কুমার বালা, ডাঃ আবদুল্লাহ এ সব বিভিন্ন প্যারামেডিক নিয়ে বিভিন্ন সময়ে চলে এখানে চিকিৎসা বানিজ্য।

সাবেক ভূমি কর্মকর্তা নিজেই প্রতিষ্ঠানের ভিতরে বসে টিকিট লেখেন ও ঔষধ বিক্রি করেন।

নির্বাহী অফিসার সাংবাদিদের বলেন এমন অপচিকিৎসা উপজেলার কোথাও যদি কেউ দিয়ে থেকে আমাকে একটু অবহিত করবেন আমি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। সাধারণ জনগণের জান মালের নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com