বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন

এই গরমে কী কী ফল খাবেন, পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

খবরের আলো ডেস্ক রিপোর্টঃ
এই রোজার মধ্যে প্রচণ্ড গরমের হাত থেকে রেহাই পেতে কী কী ফল খাবেন। জানাচ্ছেন, পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা
সবাই জানেন মানব জীবনে সুস্থতার জন্য পর্যাপ্ত পানি পান করা খুব জরুরি। কিছু খাবার রয়েছে যেগুলি বিশুদ্ধ পানির উৎস। যার মধ্যে অন্যতম ফল। জেনে নিন কোন ফলে কতটা উপকারী ও বিশুদ্ধ পানি রয়েছে।
এমনিতেই রোজার মাস তার উপর আবার গরম পড়তে না পড়তেই শরীরে দেখা দিচ্ছে প্রয়োজনীয় পানির টান। তাই সকলকে এই আবহাওয়ায় যেমন পানি বেশি বেশি পান করতে হবে, সঙ্গে পানির চাহিদা পূরণ করে এমন ফল এবং খাবারও ডায়েটে রাখতে হবে। আমাদের শরীরে ৬০ শতাংশই পানি বা জল। তাই মানব জীবনে পানির চাহিদাও প্রচুর।
পানির অভাবে শরীরের একাধিক ক্ষতি হতে পারে
হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি, রক্ত সঞ্চালন, মুখে লালা তৈরিতে, পুষ্টি তৈরি, শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখা— এই সব শারীরিক ক্রিয়াকলাপগুলি সচল রাখতে পানির প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। পর্যাপ্ত পানির অভাবে পেশিতে টান ধরতে পারে। শরীরে ক্লান্তিভাব দেখা যায়। কিডনির কার্যকারিতা ঠিক রাখতে পানি বেশি বেশি পান করা জরুরি। এছাড়া শরীরে ওজন কমাতেও প্রচুর বিশুদ্ধ পানি পান করা দরকার। খাবার খাওয়ার ঠিক ৩০ মিনিট আগে কিছুটা পানি পান করলে খিদে বাড়ে, হজম প্রক্রিয়া স্বাভাবিক হয়। শরীরে ক্যালোরি ক্ষয় হতে সাহায্য করে। পানি ছাড়া গ্রিন টি-র মতো পানীয়ও শরীরকে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে। ত্বক তরতাজা রাখতে, মানসিকভাবে স্বতঃস্ফুর্ত থাকতে সাহায্য করে।
তবে শরীরে যতটা পানির প্রয়োজন তার সবটাই পানি পানের দ্বারা নয়, খাবারের মাধ্যমে শরীরে অনেকটা পানির চাহিদা মেটানো যায়। বিশেষত কিছু ফল রয়েছে যেগুলি খেলে পানির জোগানও দেওয়া যায় শরীরে।
তরমুজ
তরমুজে ৯২ % বিশুদ্ধ পানি আছে, যা সহজেই গরমকালে ডিহাইড্রেশনের সমস্যা মেটায়। শুধু তাই নয়, তরমুজে উপস্থিত আরও পুষ্টিগুণ হার্টের নানা সমস্যা দূর করার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।
আম  
সাধারণত আমে ৮৩ শতাংশ পানি থাকে। বেশিরভাগ মানুষই এই ফল খেতে পছন্দ করেন। এই ফলে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আমে রয়েছে প্রচুর বিটা ক্যারোটিন যা চোখের জন্যেও অত্যন্ত ভাল।
 
লেবু 
লেবুতে ৮৭ শতাংশ পানি থাকে। শরীর হাইড্রেটেড রাখার পাশাপাশি লেবু এনার্জি বৃদ্ধি করে। বিশেষত যাঁরা ব্যায়াম করেন, তাঁদের প্রতিদিন খাওয়া উচিত। এটি ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ, তাই ত্বকের জন্যেও ভীষণ উপকারী।
আপেল
আপেলে ৯৬ শতাংশ পানি থাকে। প্রতিদিন একটি করে আপেল খেলে রোগব্যাধি দূরে থাকে। আপেল বিপাকক্রিয়ার উন্নতি করে, হার্টকে সুস্থ রাখে এবং রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করে। এতে উপস্থিত ভিটামিন এবং খনিজ, দাঁত ও হাড়কে শক্তিশালী করে এবং ত্বককে সুস্থ রাখে।
আনারস
আনারস একটি সুস্বাদু ও সরস ফল। এতে ৮৬ শতাংশ পানি রয়েছে। এটি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। আনারসে প্রচুর ম্যাঙ্গানিজ থাকে যা হাড়ের জন্য উপকারী। এতে ফাইবারের পরিমাণ বেশি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ।
পেঁপে
পেঁপেতে বিশুদ্ধ পানি ছাড়াও ভিটামিন সি, ফাইবার এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভিটামিন সমৃদ্ধ পেঁপে খুব উপকারী।
ব্লুবেরি
ব্লুবেরিতে ৮৪ শতাংশ পানি আছে। ব্লুবেরি রক্তকে বিশুদ্ধ করে। এটিতে সমস্ত প্রয়োজনীয় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে যা মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখে। বহু মানুষ কাশি এবং সর্দি নিরাময়ের জন্যও ব্লুবেরি খান।
শশা
এতে প্রায় ৯৬ শতাংশ পানি থাকে, এছাড়া রয়েছে প্রচুর ডাইজেস্টিভ এনজাইম যা খাবার হজম করতে সাহায্য করে। এছাড়া শরীরে পানি ধরে রাখতেও এর জুড়ি নেই। রয়েছে প্রচুর ফাইবার। তাই কনস্টিপেশন প্রতিরোধেও সাহায্য করে।
ডাবের পানি
অতিরিক্ত গরমের প্রয়োজনীয় পানি শরীর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ফলে ডিহাইড্রেশনের মতো সমস্যা হয়। ডাবের পানি শরীরে এই পানির ঘাটতি পূরণ করে। এতে আছে কার্বোহাইড্রেট যা এনার্জি বাড়ায়। এতে আছে ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও ভিটামিন সি যা ব্লাড প্রেশারকে নিয়ন্ত্রণ করে।
তালশাঁস 
তালের শাঁসে রয়েছে ভিটামিন সি ও বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন এ, যা দৃষ্টিশক্তিকে প্রখর করতে সাহায্য করে। তালশাঁসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দিতে সাহায্য করে। কচি তালের শাঁস বমিভাব, লিভারের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়াও রক্তাল্পতা প্রতিরোধেও উপকারী এই সুস্বাদু ফল এটি।
আখের রস 
আখ বা আখের রস হল প্রাকৃতিক মিনারেল ওয়াটার। পেটের সমস্যা বা ডিহাইড্রেশনের জন্য এটি খুব উপকারী। দাঁতের স্বাস্থ্য ভাল থাকে। একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বাড়ন্ত শিশুরা যদি আখের রস চিবিয়ে পান করে তাহলে তার দাঁতের সমস্যা অনেকটাই লাঘব হয়। আখের রসে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন ও এন্টিঅক্সিড্যান্ট যা ব্রেস্ট ক্যানসার এবং প্রস্টেট ক্যানসার নিরাময়ে কাজ করে।
 
আঙুর 
আঙুরে প্রায় ৮১% পানিয় অংশ রয়েছে। এটি আমাদের পরিপাকতন্ত্র থেকে অ্যাসিডের মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং কিডনির উপর চাপ কমায়। আঙুর মাইক্রো নিউট্রিয়েন্টস যেমন, কপার, আয়রন এবং ম্যাঙ্গানিজে ভরপুর একটি ফল যা হাড়ের গঠন এবং মজবুত হওয়ার জন্য অত্যন্ত জরুরি। কিডনির যে কোনও সমস্যা থেকে আমাদের মুক্ত রাখে।
লিচু 
মৌসুমি ফল হিসাবে লিচু অসম্ভব উপকারি একটি ফল। প্রতিটি লিচুতে প্রায় ৮৪% পানি থাকে যা ডি হাইড্রেশন উপশমে বিশেষ কার্যকরী। লিচু ক্যানসারের নোভিস কোষগুলিকে ধংস করে। ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট যা কোষের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি হ্রাস করে। প্রচুর ফাইবার ও পানি যা হজমে এবং ওজন কমাতেও সাহায্য করে।
 
জামরুল
এতে প্রায় ৮৩% পানি রয়েছে। এছাড়াও ফ্ল্যাভনওয়েড ও ফাইটকেমিক্যাল সমৃদ্ধ জামরুল ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়। এই ফলের গ্লাইসেমিক লোড খুব কম হওয়ায় ডায়াবেটিসের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। এই রসালো ফল মস্তিষ্ক ও লিভারের যত্নে টনিক হিসাবে কাজ করে বলে বিশেষজ্ঞরা মত দিয়েছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com