বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ন

জামাই ষষ্ঠী কি?

মানব মন্ডল, কোলকাতা থেকে:

 

 

আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস। জানেন কি বাংলার লোক সংস্কৃতি বহু আগে থেকেই এই পরিবেশে সন্মান করতে শিখিয়েছে। বাংলা লোক সংস্কৃতি নিজস্বতা আছে। জামাইষষ্ঠী  নিয়ে  যতো মজা করুন।এটি কিন্তু একটি লৌকিক ধর্মীয় প্রথা। জ্যৈষ্ঠ মাসের শুক্লপক্ষে ষষ্ঠী তিথিতে বাঙালি হিন্দু মেয়েরা ষষ্ঠী পূজা করেন। ষষ্ঠীদেবী বা ষষ্ঠীঠাকুর হলেন বঙ্গীয় এক পৌরাণিক দেবী। ইনি মূলতঃ সন্তানদাত্রী ও তাহার রক্ষাকর্ত্রী দেবী; তার কৃপায় নিঃসন্তান দম্পতিদের সন্তান লাভ হয় এবং তিনিই সন্তানের রক্ষাকর্ত্রী, পুরাণ মতে যেহেতু তিনি আদিপ্রকৃতির ষষ্ঠাঙ্গ অংশভুতা তাই তাহার নাম ষষ্ঠী দেবী । সম্পূর্ণ বঙ্গ ও ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে ষষ্ঠী দেবীর নামে বহু কঠিনতঃ ও সরল দুই প্রকারেই ব্রত প্রচলিত আছে এখনো।ষষ্ঠীদেবীর পার্বণ  বা পূজা থেকে এই প্রথার । অনেক জানলে অবাক হবেন  বৈদিক যুগ থেকেই জামাইষষ্ঠী পালন হয়ে আসছে। প্রতিবছর জ্যৈষ্ঠ মাসের ষষ্ঠী তিথিতে প্রথম প্রহরে  এই ষষ্ঠী পুজার আয়োজন করা হয়। ষষ্ঠীর প্রতিমা কিংবা আঁকা ছবিতে পুজা নিবেদন করা হয়। কেউ কেউ ঘট স্থাপন করেও এই পুজো করে থাকেন নিজেদের বাড়ি তে।

 

 

ষষ্ঠীপুজো উপলক্ষ্যে শ্বাশুড়িরা ভোরবেলা স্নান করে ঘটে জল ভরে নেন এবং ঘটের ওপর স্থাপন করেন আম্রপল্লব। । ১০৮টি দূর্বা বাঁধা আঁটি দিয়ে পূজোর উপকরণ সাজানো হয়। রাখেন তালপাতার পাখা , করমচা ফল-সহ পাঁচ , সাত , নয় রকমের ফল কেটে, কাঁঠাল পাতার ওপর সাজিয়ে রাখা হয় । হলুদে দিয়ে একটা সুতো রাঙিয়ে তাতে ফুল, বেলপাতা দিয়ে গিট বেঁধে সাজাতে হয়।  মা ষষ্ঠীর পুজো পুজো করে । জামাই এলে তাঁকে বসিয়ে সুতোটা হাতে বেঁধে দিয়ে, ধান-দূর্বা দিয়ে শ্বাশুড়ি পাখার হাওয়া দিয়ে ‘ষাট-ষাট-ষাট’ বলে  আশীর্বাদ করেন।
লোক কথা অনুসারে , বেণেবাড়ির ছোট বউএর  খাবার জিনিসে তার বড়ো লোভ।  ষষ্ঠী পুজোর আয়োজনে নানা লোভনীয় ফল-মূল মিস্টি দেখে  লোভ আর সংবরণ করতে  না  পেরে ছোট বউ , নির্জন দেখেই কয়েকটা মন্ডা মেঠাই টপাটপ খেয়ে নেয়আর দোষ চাপিয়ে দেয় একটা  বিড়াল ওপর। বিড়াল  বেজায় চটে গেলো।  বিড়াল  আবার মা ষষ্ঠীর বাহন। তাই সে অপেক্ষায় থাকলো।ছোট বউ সন্তান প্রসব করেই একটু খানি ঘুমলো।  সুযোগ বুঝে বিড়াল ছেলে মুখে করে বনে পালাল। এমনি করে সাত ছেলেকে হারিয়ে ছোট বউ  পাগলের মতন ঘুরালো বনে জঙ্গলে। মা ষষ্ঠীর বড়ো দয়া হতে  , বামনির বেশ ধরে এসে বউকে  জানলো; বিড়ালের উপর দোষ চাপিয়ে সে ঠিক করে নি । নিজের পরিচয় দিয়ে পুজো করার নির্দেশ দিলেন বনের মধ্যে। এই জন্যই ষষ্ঠীদেবীর অপর নাম অরণ্যষষ্ঠী ; যা হল আজকের জামাই ষষ্ঠী । মেয়ে যাতে সুখে শান্তিতে দাম্পত্য জীবন যাপন করতে পারে, তার জন্য মঙ্গল কামনা।
 তবে এই পূজা তে পালিত সব রীতি নীতি র একটা অর্থ আছে।
ফুল, বেলপাতা  সুতো বাঁধা , পরিবারের বন্ধএ অটুট থাকার প্রতীক।পাখা দিয়ে হাওয়া করে সমস্ত আপদ-বিপদ দূর করেন।‘ষাট-ষাট-ষাট’ বলে দীর্ঘায়ু কামনা করেন।
ধান সমৃদ্ধি ও বহু সন্তানের আর দূর্বা চিরসবুজ ও চির সতেজতার প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com