বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

সাবেক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ডিস ও ইন্টারনেটের লাইন কেটে দেয়ার অভিযোগ

খবরের আলো :
সাভার উপজেলা প্রতিনিধিঃ
সাভারের আশুলিয়ায় ডিস ও ইন্টারনেট ব্যবসা কেড়ে নেয়ার চেষ্টায় দুটি প্রতিষ্ঠানের প্রায় চার থেকে পাঁচশ লাইন কেটে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে আশুলিয়ার সাবেক যুবলীগ নেতা জয়নাল ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (২১ জুন) বিকালে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী ও আশুলিয়া থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুমন মীর। আশুলিয়ার জামগড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
এর আগে গত ১৯ জুন আশুলিয়া থানায় এ অভিযোগ দায়ের করেন জান্নাত মীর ইন্টারনেট সার্ভিস ও এসটি ক্যাবল নেটওয়ার্কের ম্যানেজার মোঃ শাহীন(২৬)।
অভিযুক্তরা হল, ইয়ারপুরের দারোগ আলীর ছেলে ইউনিয়নের সাবেক যুবলীগ নেতা মোঃ জয়নাল আবেদিন (৩৮) ও তার ভাই রুবেল(৩৫), ফালু মিয়ার ছেলে মোকলেছ (৩৫), ছাদেক ভূঁইয়ার ছেলে মনির ভূইয়া (৩৫), শাহজাহান মিয়ার ছেলে আমান (৩৫) ও অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন। তারা সকলে জামগড়ার গফুর মন্ডল স্কুল এলাকায় বসবাস করে।
লিখিত অভিযোগে শাহীন উল্লেখ করেন, এই দুটি প্রতিষ্ঠান আশুলিয়ার জামগড়া মোল্লাবাড়ি, মোল্লাবাজার, ভুইয়াপাড়া, গফুর মন্ডল স্কুল সহ আশেপাশের এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছিল। ১৯ জুন সকালে জয়নালের সহযোগীরা মোল্লাবাজার রোজ গার্মেন্টেসের পেছনে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাদের ৪ থেকে ৫শত সংযোগ তার কেটে বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এসময় প্রায় দেড় লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন হয়। এছাড়া সেসময় তারা ৬৫ হাজার টাকার ইন্টার নেটের মালামাল ও ১ লাখ ২০ হাজার টাকার ডিসের মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। বাঁধা প্রয়োগ করতে গেলে প্রতিষ্ঠানের স্টাফ ইমরান, বাবু ও শাকিলকে এলোপাতাড়ি চড় থাপ্পড় মেরে আহত করে অভিযুক্তরা।
জান্নাত মীর ইন্টারনেট সার্ভিসের স্বত্তাধিকারী সুমন মীর বলেন, আমি বৈধ ব্যবসায়ী। আমার সকল লাইসেন্স আছে। আমি নিয়মিত ভ্যাট ট্যাক্স প্রদান করে ব্যবসা করে আসছি। তবুও আমার প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা দখল করার পায়তার করছে তারা। লাইসেন্স ধারী ব্যবসায়ীদের জন্য তো কোন এলাকা নির্ধারণ করা নেই। তবুও আমাকে সেই এলাকায় ব্যবসা করতে বাঁধা প্রদান করছে তারা। এর আগেও তাদের বিরুদ্ধে এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে।
অভিযুক্ত জয়নাল আবেদিন বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আমি এরকম কোন কাজ করিনি। সব সাজানো নাটক।
আশুলিয়া থানার এসআই সুব্রত রায় বলেন, এটি তদন্তাধীন বিষয়। এখনো মামলা দায়ের হয়নি। এ ব্যাপারে আমাদের উর্দ্ধতন অফিসারেরা অবগত আছেন। তাদের নির্দেশনা আছে, আগে যে যেভাবে ব্যবসা করত সে যেন সেভাবেই ব্যবসা করে। এর ব্যতয় ঘটলে বা কেউ বিশৃংখলা ঘটাতে চাইলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা আছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018 Dailykhaboreralo.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com